বগুড়ায় গুলিবিদ্ধ স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যু

সংবাদদাতা, বগুড়া: বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নাজমুল হাসান ওরেঞ্জ (২৮) মারা গেছেন।

সোমবার রাত ১১টায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণ ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

গত ২ জানুয়ারি (রবিবার) রাত ৮টার দিকে শহরের মালগ্রাম এলাকায় গোলাগুলিতে ওরেঞ্জ গুলিবিদ্ধ হন। এ সময় স্বেচ্ছাসেবক লীগের অপর কর্মী মিনহাজ হোসেন আপেলও (২৪) গুলিবিদ্ধ হন।

নাজমুল হাসান ওরেঞ্জ শহরের মালগ্রাম ডাবতলা এলাকার রেজাউল করিমের ছেলে। তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ বগুড়া জেলা শাখার সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন।

এলাকাবাসী জানায়, মালগ্রাম এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কয়েকদিন ধরে মালগ্রাম ডাবতলা এলাকায় পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও অস্ত্রের মহড়া চলে। এর জের ধরে ২ জানুয়ারি রাত ৮টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি হলে অরেঞ্জ ও আপেল গুলিবিদ্ধ হন।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ওরেঞ্জ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

ঘটনার পরদিন ওরেঞ্জের স্ত্রী স্বর্নালী আক্তার বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন।

এদিকে ওরেঞ্জ মারা যাওয়ার সংবাদে উত্তেজনা দেখা দিলে মালগ্রাম ডাবতলা ও মালগ্রাম দক্ষিণপাড়া এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

বগুড়া সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেলিম রেজা বলেন, এলাকায় পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। মরদেহ ওই হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।