প্রতিনিধি, পাবনা : সরকার স্বল্প খরচে অত্যাধুনিক নিউক্লিয়ার মেডিসিন প্রযুক্তি জনসাধারণের কাছে সহজলভ্য করতে সারা দেশে ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সেস (ইনমাস) এর ৮টি (পাবনাসহ) নতুন শাখা স্থাপনের লক্ষে ভবন নির্মাণের কাজ শেষ পর্যায়ে।

হাসপাতালগুলিতে ক্যান্সারের মতো রোগের জন্য নিউক্লিয়ার মেডিসিন ডায়াগনস্টিক এবং চিকিৎসা পরিষেবা থাকবে এবং থাইরয়েড, মস্তিষ্ক, হাড়, হার্ট, স্তন, ফুসফুস, হার্ট, কিডনি ইত্যাদি রোগ নির্ণয় করা হবে।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি ২০১৭ সালে এই পরিকল্পনার জন্য ৫৮২ কোটি টাকা বরাদ্দ করে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত পর এটি অনুসরণ করে, সরকার যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অন্যান্য মেডিকেল কলেজগুলিতে এই প্রকল্প প্রসারিত করবে ব্লে জানাগেছে।

সংশ্লিষ্টদের থেকে জানা যায়, সকল মানুষ যাতে সহজে এই সেবা পেতে পারে সেজন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় মানুষ প্রাণঘাতী রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য এই আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারবে।”

৮টি হাসপাতালের জন্য নির্বাচিত স্থানগুলো হল আগারগাঁওয়ের শেরেবাংলা শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব দ্য বক্ষব্যাধি ঢাকার হাসপাতাল; গোপালগঞ্জের শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজ; এবং পাবনা, কুষ্টিয়া, যশোর, কক্সবাজারের মেডিকেল কলেজ এবংসাতক্ষীরা।পরবর্তী পর্যায়ে নোয়াখালী, রাঙ্গামাটি, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, টাঙ্গাইল, জামালপুর এবং পটুয়াখালীর হাসপাতালে তাদের সুবিধা সম্প্রসারণ করবে।

সূত্র জানায়, এই প্রকল্প এর মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে মানুষেরা পরমাণু চিকিৎসা সেবা পাবে। । এটি পারমাণবিক বিজ্ঞান অধ্যয়নরত গবেষকদের সুযোগ-সুবিধা প্রসারিত করবে এবং ফলস্বরূপ দেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

বর্তমানে দেশের মাত্র ১৪টি মেডিকেল কলেজে পরমাণু ওষুধ সুবিধা রয়েছে এবং সংখ্যাটি ২৩-এ নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব রয়েছে মোট ৬৪ টি জেলার জেলা পর্যায়ের সমস্ত বড় হাসপাতালে পরিষেবা প্রসারিত করার পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের।।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার মেডিসিন অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সেস (এনআইএনএমএএস) এর মাধ্যমে বর্তমান সরকার উন্নত চিকিৎসা সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ।

“মানুষের নিউক্লিয়ার মেডিসিনের সুবিধা পেতে ঢাকা বা অন্য বড় শহরে ছুটতে হবে না। এইভাবে, এটি রোগীদের ভোগান্তি লাঘব করবে এবং তাদের বিভিন্ন রোগের মানসম্পন্ন রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা প্রদান করবে।

হাসপাতালগুলোর ৮টি নতুন (ইনমাস) -এ পারমাণবিক ওষুধের ক্ষেত্রে অতি-আধুনিক প্রযুক্তি থাকবে। এই প্রতিষ্ঠানগুলিতে স্পেক-সিটি, স্পেক্ট, বিএমডি, রেডিও ইমুনিসাসি আপটেক সিস্টেম, কালার ডপলার মেশিন, স্বয়ংক্রিয় গামা কাউন্টার, থাইরয়েড ক্যামেরা, থাইরয়েড আপটেক সিস্টেম ইত্যাদি থাকবে।

উল্লেখ্য (ইনমাস), ঢাকা. বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এর অধীনে একটি বাংলাদেশ সরকারী সংস্থা। এটি দেশের প্রথম নিউক্লিয়ার মেডিসিন সেন্টার ১৯৬২ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে স্থাপিত হয়।

নতুন (ইনমাস) হাড়, কিডনি, থাইরয়েড গ্রন্থি, মস্তিষ্ক এবং লিভারের বিভিন্ন রোগের জন্য ডায়াগনস্টিক এবং চিকিত্সা পরিষেবা সরবরাহ করবে। নিউক্লিয়ার মেডিসিন সুবিধাগুলিতে স্ট্যাটিক এবং ডাইনামিক সিনটিগ্রাফি উভয় পরীক্ষাই পাওয়া যাবে।

সিনটিগ্রাফি হল নিউক্লিয়ার মেডিসিনে একটি ডায়াগনস্টিক পরীক্ষা, যেখানে ওষুধের সাথে সংযুক্ত রেডিওআইসোটোপগুলি একটি নির্দিষ্ট অঙ্গ বা টিস্যুতে (রেডিওফার্মাসিউটিক্যালস) অভ্যন্তরীণভাবে নেওয়া হয় এবং নির্গত গামা বিকিরণ বহিরাগত ডিটেক্টর (গামা ক্যামেরা) দ্বারা বন্দী করে দ্বি-মাত্রিক চিত্র তৈরি করা হয়।

বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে, ৮টি ( ইনমাস )এর প্রত্যেকটি তাদের নিজস্ব ৬-তলা বিল্ডিং এবং অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ করবে, স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক ডিভাইস কিনবে এবং ২৬ জন কর্মী নিয়োগ করবে
ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সেস (ইনমাস ), পাবনা, সদর উপজেলার কাশিপুরে পাবনা মানসিক হাপাবনাসপাতাল সংলগ্ন পাবনা মেডিকেল কলেজ চত্বরে এই ‘নিউক্লিয়ার মেডিসিন সেন্টার’ নির্মাণ করা হচ্ছে।

নির্মাণাধীন বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের আওতায় এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে চিকিৎসাক্ষেত্রে পাবনাবাসীসহ আশপাশের জেলাসমূহের জটিল রোগাক্রান্ত ব্যক্তিরা সেবা নিতে পারবেন। তাদের আর রাজশাহী, খুলনায় যেমন দৌঁড়াতে হবে না; তেমনি অতিরিক্ত অর্থও ব্যয় হবে না।

এখানে চিকিৎসাক্ষেত্রে থাকবে- স্পেস্ট সিটি, বিএমডি, কালার ডপলার মেশিন, অটোমেটিক গামা কাউন্টার, থাইরয়েড ক্যামেরা, থাইরয়েড আপটেক সিস্টেমসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি সম্পন্ন টেস্ট ও চিকিৎসার সুযোগ।

এ প্রকল্পের কার্যক্রম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তি কমিশন হতে নিয়ন্ত্রণ ও মনিটরিং করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান।

প্রকল্প পরিচালক মজিবুর রহমানের কাছে নিউক্লিয়ার মেডিসিন সেন্টার নির্মাণ কার্যক্রমের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান ও বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান ড. সানোয়ার হোসেনের নির্দেশক্রমে প্রকল্পটির নির্মাণকাজ দ্রুততার সাথে শেষ করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এক্ষেত্রে আমাকে সার্বক্ষণিক প্রকল্পের সহকারী পরিচালক হাবিবুল্লাহ পাশে থেকে কাজে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here