নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন : একজন নারী বা পুরুষ সে কেমন পোশাক পরবে।কেমন করে থাকবে তা সম্পূর্ণ ভাবে একান্ত ব্যক্তির ইচ্ছার উপর বর্তায়। এটা সকলের জন্মগত অধিকার। জন্মের সময় কোন মানুষ কাপড় পরে জন্মায় না। আমরা মানুষই কাপড় তৈরী করেছি।

আমাদের প্রয়োজনে ব্যবহার করতে। আমরাই ঠিক করবো আমাদের কাপড় কখন কোথায় কিভাবে ব্যবহার করবো।দ্বিতীয় কারো কোন অধিকার বা ক্ষমতা নাই অন্যের ব্যাক্তি রুচী বা তার জীবন যাপনে হস্তক্ষেপ করার।

আল্লাহর যদি আমাদের কাপড় পরা নিয়ে এতো মাথা ব্যাথা থাকতো তাহলে কাপড় পরে জন্ম নিতো।একেবারে কবর পর্যন্ত একই কাপড় পরা থাকতো। আল্লাহর যেখানে কাপড়ের সাথে কোন সম্পর্ক নাই।সেখানে এরা কারা? যারা অন্যের পোশাক নিয়ে কথা বলে? সকলে নিজ অবস্থানে শান্তি বজায় চলবে এটাই হওয়া উচিত মানুষের।একে অপরকে সহযোগিতা করবে।

এটাই হলো সত্যিকার মানুষের দায়িত্ব। যারা একা বোঝেনা তারা আদো মনোষত্বের শিক্ষা পায়নি।তেমনি ধর্ম যার যার একান্ত ব্যাক্তিগত বেপার। যার কাছে ধর্ম যেমন সে সেভাবেই ভাববে বা পালন করবে। কেউ কারো ধর্মীয় বিষয়ে জোর পূর্বক চাপিয়ে দেয়া বা মাননোর চেষ্টা করাতপ চাইলে।দন্ডনীয় অপরাধ বলে গন্য হবে।

যারা নিজ দেশের আইন সংবিধান মান্য না করে।অতিরঞ্জিত ধর্মের দোহায় দিয়ে পার পেতে চায় তারা কখনো সমাজের জন্য রাষ্ট্রের ভালো কিছু বয়ে আনবেনা। যে কোন অপরিচিত দেখে আমরা কেনো ভাববো সে আমার মতন করেই জীবন যাপন করবে।অথবা অপর ব্যাক্তি আমার চাওয়া পাওয়া মানতে বাধ্য।

এমন চিন্তা মানুষকে সন্ত্রাসী বা উগ্রবাদী মানুষে পরিণত করে। সকলের আলাদা আলাদা চিন্তা চেতনা থাকে।সকলের পছন্দেও তেমন ভিন্নতা থাকবে। কেউ হতে পারে ভিন্ন ধর্মের ভিন্ন বর্নের ভিন্ন জাতের অথবা ভিন্ন সংস্কৃতির।তাদের ভিন্নতা আমরা মেনে নিতে না পারলে।অপরের কাছে আমাদের অন্যায় আবদার মেনে নিতে হবে কেনো? সকলে এসব কুকর্ম কে বাহবা দেয়ার পূর্বে নিজেদের বিবেককে প্রশ্ন করো।

একবার মনকে বলো অপরের পছন্দ মতন খাওয়া পরা চলাফেরা করতে তোমাদের কত সময় ভালো লাগবে? অথবা তোমরা কজন আছো ধর্ম সম্পর্কে ভালো জানো বা মানো? আমার মনে হয়না একজন ও পাওয়া যাবে। সকলের উদ্দেশ্য লিখলাম। সকলের আত্মিক উন্নয়নের জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here