চরফ্যাশন প্রতিনিধি : বিগত বছরে জ্যৈষ্ঠ মাসে ভোলার মেঘনা-তেতুলিয়া নদীতে কাক্সিক্ষত ইলিশের দেখা মিললেও এবার তার ব্যতিক্রম দেখা যাচ্ছে। ইলিশ পাওয়ার আশায় প্রতিদিন জেলেরা নদীতে গেলেও ইলিশ শূন্য ফিরতে হচ্ছে তাদের। ইলিশের আকালে জেলেরা নতুন করে ধারদেনায় ঋণগ্রস্থ হচ্ছে।

তারপরও প্রতিদিন আশায় বুক বেঁধে নদীতে যাচ্ছে স্ব-স্ব জেলে নৌকা নিয়ে। এসব জেলের অধিকাংশই ফিরে আসছে সামান্য ইলিশ মাছ নিয়ে, যা দিয়ে ট্রলারের তেল খরচ উঠলেও অভাব-অনটনে থাকা জেলে পরিবারে সচ্ছলতা ফিরে আসেনি। ইলিশ নির্ভর ভোলার চরফ্যাশনের প্রায় ২০ হাজার জেলে পরিবারের জীবন-জীবিকা এখন নানামুখী সংকটে।

গত মাসের ২০মে থেকে সাগরে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে। এদিকে আমবশ্যা সামনে রেখে মেঘনা তেতুলিয়া নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তেতুলিয়া-মেঘনা নদীতে এখন ইলিশ মাছের আকাল দেখা দিয়েছে। চরফ্যাশন উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার বলেন, জৈষ্ঠ্যের মাঝামাঝি স্বাভাবিক নিয়মে মেঘনা নদীতে এখন ইলিশ পাওয়ার কথা।

জলবায়ুর বিরুপ প্রভাবে মেঘনার পানি মাঝেমধ্যে লোনা-মিঠা দুই এর মিশ্রনের প্রভাবে নদীতে এখন ইলিশের দেখা মিলছে না। মেঘনার পানি স্বাভাবিক হলেই আবার জেলেদের জালে আশানুরূপ ইলিশ ধরা পরবে।

মেঘনা নদীতে ইলিশ ধরতে আসা কামাল হোসেন মাঝি জানান, সোমবার সকালে আমরা ১২ জন জেলে জ্বালানি তেলসহ জাল ও নৌকা নিয়ে মেঘনা নদীতে যাই। দুইবার নদিতে জাল ফেলে ৬শ, ৮শ গ্রাম সাইজের ৬টি ইলিশ পান। মাছ বিক্রি করে আয়তো দূরের কথা, খরচের টাকা না ওঠায় অংশিদার জেলেদের দুর্ভোগ বাড়ছে।

এভাবে সারা দিন নদীতে জাল ফেলে যে ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে তা দিয়ে জ্বালানি খরচও আসছে না। জেলেরা প্রায় শূন্যহাতে বাড়ি ফিরছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক জেলে জানান, গত বছর এই সময় দুই আড়াইশ মণ ইলিশ সামরাজ ঘাটের আড়তে ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে। নদীতে ইলিশ ধরা পড়ছে না তাই ইলিশ সংকটে বাজারে দাম অনেক বেশি। মৎস আড়ৎ ঘাট এলাকায় বর্তমানে এক কেজি সাইজের ইলিশ মণ ৭০-৭৫ হাজার টাকা ও ৭শ-৮শ গ্রামের সাইজের ইলিশের মণ ৪৮-৫০ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

জলবায়ুর পরিবর্তনের কারনে জৈষ্ঠ্য আষাঢ় মাস নদীতে ইলিশ না পাওয়ার সন্ভবনা রয়েছে। এরপরে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে অস্বাভাবিক নিয়মে শ্রাবণ ভাদ্র মাসে ইলিশ পাওয়া যাবে বলে এক মৎস বিশেষজ্ঞ সূত্রে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here