প্রতিনিধি, ভৈরব : প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা এক ইঞ্চি জমিও আবাদের বাকী থাকবে না, সেই থেকে ভৈরবেও তা বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। বাড়ির আঙ্গিনাসহ সব জায়গায় কৃষকরা আবাদ করছে কোনো না কোন ফসল।

দিন বদলে যাওয়ায় এখন আর কৃষকদের অবসর নেই। একের পর এক কৃষি কাজ লেগেই থাকছে। ফলে কৃষি অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবতর্ন আসায় সাবলম্বী হচ্ছে কৃষক, সমৃদ্ধ হচ্ছে দেশের অর্থনীতি।

জানা যায়,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনানুযায়ী খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধরি লক্ষ্যে চাষযোগ্য প্রতি ইঞ্চি জমিতে ফসল ফলানোর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে ভৈরবের কৃষি বিভাগ।

কৃষিতে বিভিন্ন রকমের ভর্তুকি এবং বিনা মূল্যে সার বীজ কীট নাশকসহ যান্ত্রিক মেশিন বিতরণের ফলে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিনা মূল্যে সার বীজ পাওয়ার কারণে পতিত জমিতে যথাযথ ব্যাবহারে চাষাবাদে আগ্রহ বাড়ছে।

এ ছাড়াও খামার যান্ত্রিকিকরণ প্রকল্প ৫০ থেকে ৭০ ভাগ ভর্তুকিতে কৃষকরা কম্বাইন্ডহারবেষ্টার মেশিন সহ নানান ধরনের মেশিন পাচ্ছেন। ফলে কৃষরা এখন কোন জমি পতিত রাখছেন না। একটার পর একটা আবাদ লেগে থাকায় কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয় কৃষকদের।

বোরো ধান কাটার পর শুরু হয়ে যায় আউশ ধানের আবাদ,আউশের চাষাবাদ শেষ হতে না হতেই আবার শুরু হয় রোপা আমন ধান রোপণের কাজ। তাছাড়া ধান চাষের সাথে সরিষা,পাট,বাদাম,আলুসহ শীতকালীন সবজিরও আবাদ হচ্ছে সর্বত্র। ফসলি জমি ছাড়াও বাড়ির আঙ্গিনায় চাষ করছে সবাজিসহ বিভিন্ন জাতের ফলমুল।

কৃষকরা বলেন, সরকার আমাদের কৃষিতে বিভিন্ন ভর্তুকিতে বিণা মূল্যে সার বীজ কিটনাশকসহ যান্ত্রিক মেশিন দেওয়ায় আমরা এখন চাষাবাদে ব্যাপক উৎসাহ পাচ্ছি। এক সময় অর্থের অভাবে সময় মত চাষাবাদ করতে পারিনি। এখন আমরা একই জমিতে একাধিকবার চাষাবাদ করে ফসল উৎপাদন করতে পারছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আকলিমা বেগম “ বাঙলা প্রতিদিন”কে বলেন, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। কৃষিতে বিভিন্ন রকমের ভর্তুকি এবং বিনা মূল্যে সার বীজ বিতরণ এবং খামার যান্ত্রিকিকরণে ভর্তুকিতে কম্বাইন্ডহারবেষ্টার মেশিন সহ নানান ধরনের মেশিন পাচ্ছেন।

কৃষিতে ভর্তুকি দেওয়ায় কৃষকদের জীবন মানের উন্নয়ন ঘটছে এবং কৃষকদের শ্রমিক সংকট যেখানে ধান চাষ থেকে শুরু করে মাড়াই পর্যন্ত এক বিঘা জমির ধান কাটতে সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা লাগত সেখানে মাত্র একবিঘা জমির ধান অল্প সময়ে কম খরছে কাটতে পারছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো. সাদিকুর রহমান সবুজ বাঙলা প্রতিদিন”কে বলেন, বর্তমান সরকার কৃষিতে একটা আমুল পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর কৃষিতে প্রচুর পরিমানে ভতর্কুকি দিচ্ছে।

বিনা মূল্যে র্কষকদের সার বীজ কীটনাশক এবং সম্প্রতি সময়ে কম্বাইন্ডহারবেষ্টার দিচ্ছে। ফলে কৃষিতে উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। যে জমিগুরি আগে এক ফসলি ছিল সে জমিতে কিন্তু কৃষকরা এখন ২ থেকে ৩ ফসল পর্যন্ত উৎপাদন করতে পারায় দেশ এখন কৃষিতে মোটামুটি সয়ংসম্পূর্ণ।

আমরা এখন প্রাণীজ ও আমীষে পৃথিবীর মধ্যে চতুর্থ,মৎস্য উৎপাদনেও আমরা চতুর্থ। ধান চাল এখন আর অন্যান্য দেশ থেকে কিনে আনতে হয়না। সব মিলিয়ে সরকার যে পলিসি গ্রহন করেছে সেটার সুফল পাচ্ছে কৃষক এবং দেশের জনগণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here