কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি : কলাপাড়ায় উজানের ঢলে স্বাভাবিকের চেয়ে নদ-নদীর পানির উচ্চতা ২ থেকে ৩ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে কলাপড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ করে অন্তত ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। দু’দফা জোয়ারে পানি বন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় ১০ হাজার মানুষ। তলিয়ে গেছে শত শত হেক্টর ফসলী জমি। ভেসে গেছে বেশ কিছু ঘের ও পুকুরের মাছ। এতে বড় ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষকরা।

তাই ভাঙা বেড়িবাঁধ পুন:নির্মান কিংবা মেরামতের দাবি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্থরা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, গত এক সপ্তাহ ধরে স্বাভাবিকেরে চেয়ে আন্ধারমানিক,তেতুলিয়া ও রাবনাবাদ নদীর পানির উচ্চতা ২ থেকে ৩ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে দু’দফা জোয়ারে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ করে কলাপড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের চান্দুপাড়া, চর চান্দুপাড়া, পশরবুনিয়া, মুন্সিপাড়া, গাজীর খাল, মঞ্জুপাড়া, হাসনাপাড়া, চারিপারা, চৌধুরীপাড়া ও বানাতীপাড়া গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে এসব গ্রামের ১০ হাজার মানুষ। অনেক স্থানে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার। প্রতি বছর এ মৌসুমে ক্ষতিগ্রস্থ হয় এসব এলাকার মানুষ। বারবার জনপ্রতিনিধিদের কাছে ধর্না ধরের দুর্ভোগ লাঘব হচ্ছেনা এসব মানুষের।

লালুয়া ইউনিয়নের চর চান্দুপাড়া গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন জানান, ৫ থেকে ৬ বছর আগে আমাদের এলাকার বেড়িবাঁধ ভেঙে যায়। প্রতি বছরই আমাদের বেশ কয়েকটি গ্রাম পানিতে তলিয়ে যায়। এবছরও আমাদের ঘর বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। আমাদের দুর্ভোগের শেষ নাই।

একই এলাকার অপর কৃষক কাশেম তালুকদার জানান, বার বার আমরা জনপ্রতিনিধিদের কাছে শুধু এই বেড়িবাঁধটি নির্মানের দাবি জানিয়েছি। কিন্তু কেউই আমাদের সহায়তায় এগিয়ে আসেনি। আমার ত্রান চাইনা শুধু বাধটা নির্মানের দাবি জানাচ্ছি। লালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ্বাস জানান, আমার ইউনিয়নের ১০ গ্রামের মানুষ পানি বন্দী হয়ে আছে।

বার বার প্রশাসনের কাছে বেড়িবাঁধ নির্মানের অনুরোধ জানিয়েছি, কিন্তু কোন কাজে আসছেনা। তাই সরকারের কাছে জোর অনুরোধ জানাচ্ছি যাতে আমাদের বেড়িবাঁধটি নির্মান করে দেয়া হয়। পটুয়াখালী জেলা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাসুদ রানা জানান, মূলত ভারতের পাহাড়ী ঢল এবং প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় বিভিন্ন নদ-নদীর পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে বৃষ্টি কমলে পানিও কিছুটা কমতে পারে।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক জানান,কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউপির ওই এলাকায় বেড়িবাঁধ নির্মানে বেশ কয়েকবার পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করেছি। বানভাসী মানুষকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহায়তা করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here