কুমিল্লা প্রতিনিধি : টানা কয়েক দিনের বৃষ্টি আর উজানের ঢলে কুমিল্লায় তলিয়ে গেছে গোমতীচরের কয়েক কোটি টাকা মূল্যের সবজি। আর মাত্র কয়েক দিনের মধ্যেই এই সবজি বাজারজাত করতেন কৃষকরা। স্বচক্ষে ফসলের তলিয়ে যাওয়া দেখে হা-হুতাশ ছাড়া তাদের আর কিছুই করার ছিল না।

জেলার বুড়িচং উপজেলার ভান্তি এলাকায় গোমতী গিয়ে দেখা যায় প্রায় ডুবে যাওয়া সবজি ক্ষেতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মুলা তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন সফিকুল ইসলাম ৪০ শতক জমিতে মুলা চাষ করেছিলেন তিনি।

সফিকুল জানান মুলা চাষে প্রায় ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন তিনি তার মতো ওই এলাকায় আরও অন্তত ২০ জন কৃষক চরে মুলা ঢেড়শ পুঁইশাক লাউ চালকুমড়া চিচিঙ্গা বরবটি চাষ করেছেন গত তিন দিনের বৃষ্টি আর উজানের ঢলে তাদের সবার ফসলই তলিয়ে গেছে।

আদর্শ সদর উপজেলার জালুয়াপাড়া ও সুবর্ণপুর এলাকার কৃষক লালমিয়া ও হোসেন মিয়া জানান তারা দুজনই ২০০ শতক করে জমিতে শসা চাষ করেছেন। এতে তাদের ৮০ হাজার টাকা করে খরচ হয়েছে। তাদের মতো নদীর ওই চরে আরও অন্তত ২০ জন কৃষক শসা চাষ করেছেন সবার শসার মাচা পানিতে তলিয়ে গেছে।

হোসেন মিয়া বলেন কী আর বলব রাতে মেঘ আসলে কলিজায় মোচড় দিত যতবার মেঘ আসছে শুধু আল্লাহ আল্লাহ করছি সব ভাইসা গেছে এখন ঋণের টাকা কেমনে দেব ভাবছি।

গোমতী নদী কুমিল্লা জেলার সদর বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়া দেবিদ্বার মুরাদনগর দাউদকান্দির ওপর দিয়ে বয়ে গেছে এসব উপজেলায় অন্তত ২০ হাজার সবজি চাষি আছেন তাদের সবারই একই দশা তারা দাবি করেছেন গোমতীর পানি বেড়ে সম্মিলিতভাবে তাদের প্রায় ১০ কোটি টাকার ফসলহানি হয়েছে।

কুমিল্লা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মিজানুর রহমান জানান রোববার থেকে গোমতীর পানি বাড়ছে এক দিনের ব্যবধানেই নদীর চর তলিয়ে গেছে এখন আমরা ক্ষয়ক্ষতি জরিপ করছি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করে তাদের ক্ষতিপূরণে যথাসাধ্য চেষ্টা করা হবে।

এদিকে গোমতীর পানি বাড়া নিয়ে দুপারের বাসিন্দারা ভীষণ দুশ্চিন্তায় রয়েছেন কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী খান মোহাম্মদ ওয়ালিউজ্জামান বলেন গোমতীর পানি বিপৎসীমার ৮৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বর্তমানে পানির উচ্চতা ৯ দশমিক ৯ মিটার। যেখানে বিপৎসীমা হিসেবে ধরা হয়েছে ১০ দশমিক ৭৫ মিটার পূর্বাভাসে বলা হচ্ছে আগামী ২৫ জুন পর্যন্ত পানি বাড়তে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here