সংবাদদাতা, কুড়িগ্রাম: বন্যায় তলিয়ে গেছে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর। সেখানে বসবাসরত পরিবারগুলো এখন খুঁজছেন ঠাঁই। কর্মহীন মানুষগুলোর যেন কষ্টের শেষ নেই।

জানা গেছে, গত কয়েকদিন ধরে বন্যার পানিতে তলিয়ে যায় কুড়িগ্রামের চিলমারীর একের পর এক এলাকা। তলিয়ে যায় জোড়গাছ মুদাফৎথানা বাঁধের পাশে প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরগুলো। গৃহহীন ও ভূমিহীন ১৬টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে। ধীরে ধীরে ডুবে যায় ঘরগুলো। সুখের ঠিকানাটিও ছাড়তে হয় তাদের। বন্যার থাবায় উপহার পাওয়া ঘরগুলো ছেড়ে অনেকে বাঁধে আশ্রয় নেয়, আবার অনেকের সেখানেও মেলে না ঠাঁই। একটু আশ্রয়ের জন্য চলছে তাদের দৌঁড়ঝাপ। আবার রয়েছে ভয়েও আবার উপহারের ঘরগুলো বে-দখল হয়ে যাবে না তো।

বাঁধে আশ্রয় নিলেও যুবতী, কিশোরী মেয়েসহ শিশুদের নিয়েও রয়েছে বড় দুশ্চিন্তায়। এছাড়াও উপজেলার পুটিমারী এলাকার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ১৬টি ঘর পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে সেখানের ১৬টি পরিবার। কর্মহীন হয়ে পড়েছে আশ্রয়ণের বাসিন্দারা। ফলে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। এছাড়াও রয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট।
নদীর পানি কমতে শুরু করলেও বাঁধের পশ্চিম পাশের পানি নামতে বেশ দেরি হয় জানিয়ে এলাকাবাসী বলেন, বাঁধের পাশের মানুষের কষ্ট আর দুর্ভোগ অন্যান্য এলাকার চেয়ে অনেক বেশি। আর এই বাঁধের পাশের অবস্থিত আশ্রয়ণ ঘরগুলো নিচু স্থানে হওয়ায় দ্রুত তা তলিয়ে যায়। আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে আশ্রয় নেয়া মোরশেদা, বেলেদা, সকিনা জানান, বন্যায় সব ঘর তলিয়ে গেছে আর আশ্রয়ণে যাওয়ার কোন রাস্তা না থাকায় আরো বড় সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে।

তারা আরো জানান, ঘর ছেড়ে বাঁধে আশ্রয় পেতেছি। তবে এখানে রয়েছে নিরাপত্তার অভাব। এসময় বাসিন্দারা জানান, আমরা খুব খাবার কষ্টে আছি।

কথা হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, আমরা শুরুতেই তাদের নিকট খাবার পাঠিয়েছি। এছাড়াও কোন সমস্যা হলে তা সমাধান করা হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ব্রহ্মপুত্রের পানি কমতে শুরু করলেও তা এখনো বিপদ সীমার ২৯ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল (বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত)।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here