সংবাদদাতা, নরসিংদী : নরসিংদীতে প্রকাশ্যে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার ছেলে সুজনসহ ২ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নরসিংদী শহরের হাজিপুর কাঠবাজারে নিজ দোকানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সুজিত সূত্রধর (৫৩) হাজিপুর ৩নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য। তিনি হাজিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ছিলেন।

নিহতের ছেলে সুজন সূত্রধর অভিযোগ করেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে মামলা-মোকদ্দমার জের ধরে ইউপি চেয়ারম্যানের মদদে তার লোকজন এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতের ছেলে সুজন সূত্রধর জানিয়েছেন, সন্ধ্যার পর সুজিত সূত্রধর বাড়ি থেকে হাজিপুর কাঠবাজারের নিজ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে যান। দোকানে ছেলের সঙ্গে ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করেন।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্থানীয় হাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের ভাই মনিরের নেতৃত্বে ২৫ থেকে ৩০ জনের একদল সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র নিয়ে সাবেক ইউপি সদস্য সুজিত সূত্রধরের উপর হামলা চালায়।

ওই সময় সন্ত্রাসীরা সুজিত মেম্বারকে এলোপাতাড়ি কুপাতে থাকে। নিহতের ছেলে ও দোকানের কর্মচারীরা তাদের বাধা দিতে এগিয়ে গেলে তাদেরকেও পিটিয়ে আহত করে।

তাদের আত্ম চিৎকারে কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে আহত সুজিত মেম্বারকে উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সুজন সূত্রধর আরও জানিয়েছেন, ইউপি সদস্য থাকাকালীন পরিষদের চাল ও গম বিতরণের অনিয়মসহ নানা বিষয়ে হাজিপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পিন্টুর সঙ্গে বিরোধ ছিল। বিরোধের জের ধরে চেয়ারম্যানের নামে একাধিক মামলা করেন সুজিত সূত্রধর।

মামলার জের ধরে তার বাবার উপর একাধিক বার হামলা করেছে পিন্টু চেয়ারম্যান।

মামলা তুলে না নিলে আমার বাবাকে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দিয়ে আসছিলেন। এরই জের ধরে ইউপি চেয়ারম্যানের মদদে তার লোকজন এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন।

এই বিষয়ে জানতে হাজিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পিন্টুর মোবাইলে একাধিক বার কল করে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

তবে চেয়ারম্যানের ভাই মনির সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘শত্রু কখনো শত্রুকে মারে না। বাজারে বার্নিস মিস্ত্রিদের টাকা পয়সা নিয়ে নিহত সুজিতের ছেলে সুজনের ঝগড়া হয়। এরই জের ধরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে বলে তিনি দাবি করেন।’

এদিকে সুজিত সূত্রধরকে হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন।

তিনি বলেন, নিহত সুজিত মেম্বার জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ছিলেন।

নরসিংদী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান জানিয়েছেন, কি কারণে হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয়েছে, তা উদ্‌ঘাটনে কাজ করছে পুলিশ। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here