শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
‘কোস্ট গার্ডের উপ-মহাপরিচালক কর্তৃক VBSS Course for Officer এর ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ পরিদর্শন ও সনদপত্র প্রদান ২০২২ সালের প্রথমার্ধে মেটলাইফের ১,২৭৯ কোটি টাকার জীবন বিমা দাবি নিষ্পত্তি টঙ্গী বন্ধু সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে সাড়ে ৩৩ লক্ষ টাকার ইয়াবাসহ ১ জন গ্রেফতার ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ও রবি মােবাইল অপারেটরের মধ্যে চুক্তি সই সেপ্টেম্বর থেকে নির্বাচন পর্যন্ত রাজপথ দখলে রাখবে আওয়ামী লীগ : তথ্যমন্ত্রী জাকজমক ভাবে অনুষ্ঠিত হলো ওমেন্স ইরার সবচেয়ে বড় বিজনেস সামিট বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ১১তম এয়ারক্রাফ্ট এক্সিডেন্ট ইনভেস্টিগেশন কোর্সের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠিত বাহার ঢাকা বিভাগ ও মহানগরের নতুন কমিটি নিম্নআয়ের মানুষ ১০০ টাকায় কবর দিতে পারবেন ডিএনসিসির কবরস্থানগুলোতে অনলাইন কেনাকাটায় বিকাশ পেমেন্টে ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক সাউথইস্ট ব্যাংকের ৮% নগদ এবং ৪% বোনাস লভ্যাংশ ঘোষনা

শিক্ষার গুণগত উন্নয়নে কাজ করছেন দেশের প্রথম উপাচার্য দম্পতি ড. হযরত আলী ও ড. হাফিজা খাতুন 

দেশের প্রথম উপাচার্য দম্পতি ড. হযরত আলী ও ড. হাফিজা খাতুন 

ফেরদৌস আহমাদ : স্বামী-স্ত্রী দুইজনেই শিক্ষকতা পেশার সর্বোচ্চ সন্মানজনক পদে নিযুক্ত রয়েছেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক দুইজনেই দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

স্বামী অধ্যাপক ড. হযরত আলী চুয়াডাঙ্গার বেসরকারি ফার্স্ট ক্যাপিটাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য এবং স্ত্রী অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন সরকারি পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

পরিবারের সদস্যদের সাথে দেশের প্রথম উপাচার্য দম্পতি ড. হযরত আলী ও ড. হাফিজা খাতুন   – ফাইল ছবি

স্বামী-স্ত্রী দুইজনেই উপাচার্য হওয়ায় দেশের প্রথম উপাচার্য দম্পতি হিসেবে তারা পরিচিতি পেয়েছেন। দেশে বর্তমানে ৫১টি সরকারি এবং ১০৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

অধ্যাপক ড. হযরত আলী বাংলাদেশ কৃষি ইনস্টিটিউটে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীতে তিনি রাজধানীর শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) কোষাধ্যক্ষ, সিন্ডিকেট সদস্য, ডিন, কৃষিতত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।

কৃষিতত্ত্ব বিভাগের সাবেক সিনিয়র অধ্যাপক ড. হযরত আলী শেকৃবি শিক্ষক সমিতি ও উইড সাইন্স সোসাইটি অব বাংলাদেশের সভাপতি এবং জার্নাল অব এগ্রিকালচারাল সাইন্স এন্ড টেকনোলজির সম্পাদনার দায়িত্ব পালনসহ বিভিন্ন গবেষনা প্রতিষ্ঠান ও সংস্থায় গবেষণা মূলক কাজ করেছেন।

ড. আলীর এ পর্যন্ত ১০৬টি প্রকাশনা, জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক জার্নালে মোট ১০১ টি গবেষণা নিবন্ধ, কৃষিতত্ত্ব বিষয়ে ৫ টি পাঠ্য বই বের হয়েছে। তারতত্ত্বাবধানে অনেক ছাত্র-ছাত্রী স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি সম্পন্ন করেছেন। শিক্ষা ও গবেষণারকাজেতিনি ১৪ টি দেশ ভ্রমণকরেছেন।

অপরদিকে অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীনে গবেষণা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মজীবন শুরুকরেন। পরে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক জার্নালে তার ৮০টির অধিক গবেষণা কর্ম যা বিভিন্ন বইয়ের অধ্যায়ে প্রকাশিত হয়েছে। তার ৯টি বই প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি ঢাবির দুর্যোগ গবেষণা প্রশিক্ষন কেন্দ্রের পরিচালকসহ পদ্মা সেতু, মেট্রো রেল, কর্নফুলী টানেলে পরামর্শকের কাজ করেছেন। সামাজিক সুরক্ষা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ হিসাবে তিনি নীতিনির্ধারণের অনেক সিদ্ধান্ত এবং উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে অবদান রেখেছেন।

তিনি চীনের নানজিং-এর হোহাই বিশ্ববিদ্যালয়ের পুনর্বাসন জাতীয় গবেষণা কেন্দ্রের একাডেমিক উপদেষ্টা কমিটির সদস্য।
ড. হাফিজা খাতুন ১৯৭১ সালে তার ভাই আবুল হাসান মাসুদের সেক্টর-৩ এর অধীনে সিলেট ফ্রন্টে সম্মুখ যুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই করেছেন।

আবুল হাসান মাসুদ সেক্টর-২ এর আওতাধীন ঢাকা মহানগরীর কোতয়ালী থানার বংশালের গেরিলা কমান্ডার ছিলেন।
ড. হাফিজা খাতুন জার্নাল অব দ্যা এশিয়াটিক সোসাইটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ, ঢাকা ইউনিভার্সিটি জার্নাল অব আর্থ এন্ড এনভায়রনমেন্ট সায়েন্স, ওরিয়েণ্টালজি ও গ্রাফারসহ অনেক জার্নাল সম্পাদনা করেছেন।

এ দম্পতির তিন সন্তান অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী। বড় মেয়ে তানিয়া আফরোজ আলী সনদপ্রাপ্ত পাবলিক একাউনট্যান্ট, মেঝো মেয়ে প্রকৌশলী ড. তনিমা সুমাইয়া আলী সিডনী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক এবং ছেলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন প্রকৌশলী তাহসিন ইখতিদার সিনিয়র প্রজেক্ট ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত।

সাদামাটা জীবন যাপনে অভ্যস্ত ড. হযরত আলী ও ড. হাফিজা খাতুন এ প্রতিবেদককে বলেন, দেশের গুণগত শিক্ষার মান উন্নয়নে আমরা সর্বাত্মক কাজ করে যাচ্ছি। সেই সাথে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য গবেষণার সুযোগ বৃদ্ধি করে দক্ষ মানবসম্পদ গড়তে একযোগে কাজ করব। নিজেদের সবটুকু দিয়ে দেশের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাব।

লেখক :
পিআরডি, জনতা ব্যাংক লিমিটেড, প্রধান কার্যালয়

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin.net
ব্রেকিং নিউজ :

This will close in 3 seconds