শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
‘কোস্ট গার্ডের উপ-মহাপরিচালক কর্তৃক VBSS Course for Officer এর ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ পরিদর্শন ও সনদপত্র প্রদান ২০২২ সালের প্রথমার্ধে মেটলাইফের ১,২৭৯ কোটি টাকার জীবন বিমা দাবি নিষ্পত্তি টঙ্গী বন্ধু সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে সাড়ে ৩৩ লক্ষ টাকার ইয়াবাসহ ১ জন গ্রেফতার ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ও রবি মােবাইল অপারেটরের মধ্যে চুক্তি সই সেপ্টেম্বর থেকে নির্বাচন পর্যন্ত রাজপথ দখলে রাখবে আওয়ামী লীগ : তথ্যমন্ত্রী জাকজমক ভাবে অনুষ্ঠিত হলো ওমেন্স ইরার সবচেয়ে বড় বিজনেস সামিট বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ১১তম এয়ারক্রাফ্ট এক্সিডেন্ট ইনভেস্টিগেশন কোর্সের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠিত বাহার ঢাকা বিভাগ ও মহানগরের নতুন কমিটি নিম্নআয়ের মানুষ ১০০ টাকায় কবর দিতে পারবেন ডিএনসিসির কবরস্থানগুলোতে অনলাইন কেনাকাটায় বিকাশ পেমেন্টে ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক সাউথইস্ট ব্যাংকের ৮% নগদ এবং ৪% বোনাস লভ্যাংশ ঘোষনা

‘রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবহারবিধি পাঠ্য হিসেবে সংযুক্ত করতে হবে’

জবি প্রতিনিধি : রাসায়নিক দ্রব্যাদির সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ, আমদানিকরণ, পরিবহন, বিপণন সম্পর্কে সবাইকে জানতে হবে। মাধ্যমিক থেকে পাঠ্যপুস্তকে রাসায়নিক দ্রব্যের ধরণ সম্পর্কে অধ্যায় যুক্ত করতে হবে। ব্যবহারজনিত ত্রুটির কারণে সৃষ্ট নিকট অতীতের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডসমূহ থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রসায়ন বিভাগ ও বাংলাদেশ স্টেম ফাউন্ডেশন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের যৌথ আয়োজনে ‘Chemical Management and Safety Measures: Recent Incidents’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেখা গেছে কোনো দূর্ঘটনা ঘটলে আমরা নড়েচড়ে বসি, আইনের ব্যবহার শুরু হয়। ঘটনা না ঘটলে আমাদের টনক নড়ে না। রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন আইন আছে, এগুলোর প্রয়োগ করতে হবে। আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা সবসময় এসবের ব্যবস্থাও নেন না। আবার আমাদের সচেতনতারও অভাব আছে। বিভিন্ন দূর্ঘটনার পর সরকার সাভারে ট্যানারি কারখানাগুলো স্থানান্তর করতে চেয়েছিলো কিন্তু ব্যবসায়ীদের রাজি করানো যায়নি। দেশের স্বার্থে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবহার ও সচেতনতা বিষয়ে মানুষকে জানাতে হবে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এসব আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা করবে।

তিনি আরও বলেন, সারা বাংলাদেশে আমাদের রসায়ন বিভাগ প্রথম স্থান অর্জন করেছে। আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও এই অর্জনে আমরা গর্বিত। আমরা এই ধারা অব্যাহত রাখতে চাই।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ বলেন, পুরান ঢাকার বেশিরভাগ জায়গায় রাসায়নিক দ্রব্যের গোডাউন। এখানকার জায়গাগুলো আগুনের কুন্ডুলির মতো। মানুষ অনেক ঝুঁকি নিয়ে চলাফেরা করে। নিমতলীর ঘটনার পর সরকার এই কেমিক্যাল গোডাউন সরানোর উদ্যোগ নিয়েছিলো। কিন্তু তাও কোথাও যেন একটা গলদ রয়ে গেছে।

ব্যবসায়ীরা এই মিটফোর্ড, চকবাজার, বংশাল, বাবুবাজার এলাকাতেই কেমিক্যাল স্টোর করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। সময় এসেছে রাসায়নিক দ্রব্য সম্পর্কে ধারণা রাখার। এসকল সভা-সেমিনারের আরও আয়োজন করতে হবে। সব রাসায়নিক দ্রব্য ক্ষতিকর নয়, এটাও আমরা জানি না। পুরান ঢাকা থেকে এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সরানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

বাংলাদেশ স্টেম ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আল নাকিব চৌধুরী বলেন, রাসায়নিক কারখানায় শিশুদের ব্যবহার করা হয়। এটা শিশুশ্রম হিসেবে নিন্দনীয় এবং ভয়াবহ। রাসায়নিক কারখানায় কাজ করা অনেকেই এই ধরণ ও ব্যবহার সম্পর্কে জানেন না।

রাসায়নিক দ্রব্যের ভয়াবহতা আমরা নিমতলীর অগ্নিকাণ্ডে দেখেছি। সীতাকুণ্ডের ঘটনার জন্য রাসায়নিক দ্রব্য দায়ী না হলেও কন্টেইনার ভর্তি রাসায়নিক দ্রব্য সেখানে বেহাল অবস্থায় পড়ে ছিলো। রাসায়নিক দ্রব্য সম্পর্কে জানা সকলের মৌলিক অধিকার। তাই মাধ্যমিক থেকে পাঠ্যপুস্তকে এবিষয়ে পড়াতে হবে। সরকারের পলিসি লেভেলেও আমরা এবিষয়ে দাবি জানিয়েছি।

বাংলাদেশ স্টেম ফাউন্ডেশন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের সভাপতি ও রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক অধ্যাপক ড. একেএম লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে ও রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. নাফিস আহমদের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী সাখাওয়াত হোসেন।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য, বিশিষ্ট রসায়নবিদ অধ্যাপক ড. শরীফ এনামুল কবির, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আমিনুল হক এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কেমিকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. ইয়াসির আরাফাত খান ও বাংলাদেশ বিস্ফোরক বিভাগের উপ-প্রধান পরিদর্শন ড. মো. আব্দুল হান্নান প্রমুখ।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin.net
ব্রেকিং নিউজ :

This will close in 3 seconds