বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি এবং বৈষ্যম্য কমিয়ে মাদকমুক্ত ব্যক্তিদের অনুপ্রাণিত করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সাউথইস্ট ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ইসলামী ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ব্র্যাক ব্যাংকের ৮০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন মানসম্মত সুশিক্ষাই টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার পাটকাঠি আস্ত রেখে পাটের আঁশ ছাড়ানোর যন্ত্র আবিষ্কার করলো বারি’র বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চীনা কোম্পানির ১২০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হৃদরোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে ‘‌পাটখাতের রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারণে অংশীজনদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে’ ভাষাসৈনিক সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক করতোয়ায় নৌ-দুর্ঘটনা: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৬

২১শে আগস্টে রক্তে ভেজা ছিল রাজপথ : খসরু চৌধুরী সিআইপি

নারগিস পারভীন : রাজনৈতিক অঙ্গনের বিভীষিকাময় দিন ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট। তৎকালীন সরকার বিরোধী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বহীন করার যড়যন্ত্রে মেতেছিল স্বাধীনতা বিরোধী ঘাতক চক্র। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের গ্রেনেড হামলা ছিল আওয়ামী লীগের ওপর সবচেয়ে বড় আঘাত। বাংলাদেশের ইতিহাসে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের এটি।

আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মীরা সেদিন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের সামনে জড়ো হয়েছিলেন সন্ত্রাসবিরোধী শান্তি মিছিলে অংশ নেবেন বলে। সমাবেশের প্রধান অতিথি শেখ হাসিনার জন্য অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল রাস্তার ওপর খোলা ট্রাকে। বিকাল ৩টা থেকে দলের মধ্যম সারির নেতারা বক্তব্য দেওয়া শুরু করেন এবং ৪টার দিকে শুরু হয় জ্যেষ্ঠ নেতাদের বক্তৃতার পালা। নেতা-কর্মীরা তখন অধীর আগ্রহে নেত্রীর বক্তৃতা শোনার অপেক্ষায় ছিল হাজারও নেতা কর্মীবৃন্দ।

বক্তিতা মঞ্চের দুই পাশে ছিলেন মোহাম্মদ হানিফ, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম,পাশে দাঁড়িয়ে দাঁড়ানো শেখ হাসিনার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অবসরপ্রাপ্ত স্কোয়াড্রন লিডার আব্দুল্লাহ আল মামুন, বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল তারেক আহমেদ সিদ্দিক সহ আওয়ামী লীগের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার উপস্থিতিতে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার বক্তৃতা শুরু করেন বিকাল ৫টা ২ মিনিটে এবং ৫টা ২২ মিনিটে বক্তব্য শেষ করে শেখ হাসিনা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ বলে মাইক থেকে সরে যাওয়ার মুহূর্তেই প্রথম গ্রেনেডটি ছোড়া হয়।

এর পরপরই আরও তিনটি গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয়;মূহুর্তের মধ্যে চারদিকে ধোঁয়ায় আছন্ন হয়ে যায়, ছিন্নভিন্ন লাশ, বিস্ফোরণের শব্দ, আহতদের আর্তনাদ, রক্তাক্ত নেতা-কর্মীদের ছুটোছুটিতে সেদিন ওই এলাকা হয়ে উঠেছিল বিভীষিকাময়। ২০০৪ সালের ২১শে আগস্টে রক্তে ভেজা ছিল রাজপথ। গ্রেনেড ছোঁড়া উদ্দেশ্য ছিল বর্তমান সরকার ও দলটির সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার। সেদিনের সেই ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছিল ১৬ জন।

৫৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হার মানে আইভি রহমান সহ ২৪ জন এবং আহতদের সংখ্যা ছিল প্রায় ৩০০ জন। প্রাণ প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে বাঁচাতে গিয়ে সেদিন গ্রেনেডের অসংখ্য স্প্লিন্টার বিদ্ধ হন তারেক আহমেদ সিদ্দিক, আব্দুল্লাহ আল মামুন ও শোয়েব মো. তারিকুল্লাহসহ অনেক নেতাকর্মী। মহান আল্লাহর অশেষ রহমত ও জনগণের দোয়ায় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান বর্তমানের জনন্দিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিএনপি-জামায়াত জোট যখনই সরকারে এসেছে, “জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের মদদ দিয়ে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানানোর অপচেষ্টা করেছে”। দেশের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রাকে বেগবান করতে সর্বদায় প্রস্তুত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতা কর্মীবৃন্দ। ২১ শে আগস্ট ভয়াল গ্রেনেট হামলার স্মৃতি স্মরনে একান্ত সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমে এসব কথা বলেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব খসরু চৌধুরী সিআইপি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin24.com

This will close in 1 seconds