বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৪৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি এবং বৈষ্যম্য কমিয়ে মাদকমুক্ত ব্যক্তিদের অনুপ্রাণিত করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সাউথইস্ট ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ইসলামী ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ব্র্যাক ব্যাংকের ৮০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন মানসম্মত সুশিক্ষাই টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার পাটকাঠি আস্ত রেখে পাটের আঁশ ছাড়ানোর যন্ত্র আবিষ্কার করলো বারি’র বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চীনা কোম্পানির ১২০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হৃদরোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে ‘‌পাটখাতের রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারণে অংশীজনদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে’ ভাষাসৈনিক সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক করতোয়ায় নৌ-দুর্ঘটনা: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৬

সেচ প্রকল্পে কৃষকের স্বস্তি, জ্বালানী সাশ্রয় ৮১কোটি!

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ের মাটি উর্বর হওয়ায় অন্যান্য জেলার তুলনায় যে কোনো ফসল উৎপাদন হয় বেশি। ধান, পাট, গম, ভুট্টা, আখসহ সব ধরনের ফসলের আবাদ বেশ ভালো হয় এখানে।

  এবার বর্ষার ভারি মৌসুমেও বৃষ্টির দেখা না পাওয়ায় সময় মত ধান রোপণ করতে না পারলে ধানের উৎপাদন কমে যাওয়া সহ কৃষিতে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা করছিল জেলা কৃষি অধিদপ্তর। আমন মৌসুমে প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাত না হওয়ায় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য জমিতে সম্পূরক সেচের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড ঠাকুরগাঁও।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, এ বছর পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভুল্লি বাঁধ সেচ প্রকল্পের ৮০০ হেক্টর, টাংগন বাঁধ সেচ প্রকল্পের ৪ হাজার ৪শ ৫০ হেক্টর, বুড়ি বাঁধ সেচ প্রকল্পের ১ হাজার ৭শ ২০ হেক্টর জমি সহ জেলার সকল সেচ প্রকল্পের মাধ্যমে ১১হাজার ৬শ ৬৫ হেক্টর জমিতে সম্পূরক সেচ প্রদানের উদ্যােগ গ্রহন করেছে। এ উদ্যোগের মাধ্যমে ১১হাজার ৬শ ৬৫ হেক্টর জমিতে ৫৮হাজার ২শ ৭৫ মেট্রিক টন ধান উৎপন্ন হবে, যার মুল্য ১শ ১৫ কোটি টাকা। এতে আনুমানিক ৮১ কোটি টাকার জ্বালানি সাশ্রয় হবে। জেলা অফিসের আওতায় ৮৯ টি কৃষক পানি ব্যবস্থাপনা দল রয়েছে। এতে ভূল্লী বাঁধ সেচ প্রকল্পের ১হাজার, টাংগন বাঁধে ৬ হাজার জন ও বুড়ি বাঁধ সেচ প্রকল্পে ২হাজার জন কৃষক সুবিধা পাচ্ছেন।

বুড়ি বাঁধ সেচ প্রকল্পের আওতায় উপকারভোগী কৃষক রবিউল আলম বলেন, যে পরিমাণ বৃষ্টির প্রয়োজন সেটি পাওয়া যাচ্ছে না খরার কারনে। তবে সম্পূরক সেচের মাধ্যমে আমন জমিতে পানি দেওয়ায় হতাশা দূর হয়েছে। ভালো ফসল হবে আশা করছি৷ ভূল্লী বাঁধ সেচ প্রকল্পের সভাপতি আসাদুজ্জামান বলেন, আমাদের বাঁধের আওতায় এক হাজার কৃষক সম্পূরক সেচ পাচ্ছেন। আমরা আমন ধান নিয়ে অনেক বেশী দুশ্চিন্তার মধ্যে ছিলাম ৷ আর এবারে যখন বৃষ্টি হওয়া দরকার তখন আমরা বৃষ্টি পায়নি। তবে সম্পূরক সেচের মাধ্যমে আমিসহ আমাদের এখানকার কৃষকেরা অনেক উপকৃত হচ্ছেন। আর কৃষিতে প্রাণ ফিরে পেয়েছেন ৷

জেলার টাংগন, বুড়ি ও ভুল্লি বাঁধ সেচ প্রকল্পের পূর্নবাসন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী মোখলেসুর রহমান বলেন, আমন জমিতে সেচ প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকেরা দারুণ ভাবে লাভবান হচ্ছেন ৷

ঠাকুরগাঁও পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-প্রধান সম্প্রসারণ অফিসার রফিউল বারী জানান, আমরা সব-সময় কৃষকদের জন্য কাজ করে যাচ্ছি ৷ খরা মোকাবেলায় আমন ধানের জমিতে সম্পূরক সেচের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি ৷ এর মাধ্যমে কৃষকেরা কৃষিতে স্বস্তি ফিরে পেয়েছেন ৷

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin24.com

This will close in 1 seconds