বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি এবং বৈষ্যম্য কমিয়ে মাদকমুক্ত ব্যক্তিদের অনুপ্রাণিত করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সাউথইস্ট ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ইসলামী ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ব্র্যাক ব্যাংকের ৮০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন মানসম্মত সুশিক্ষাই টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার পাটকাঠি আস্ত রেখে পাটের আঁশ ছাড়ানোর যন্ত্র আবিষ্কার করলো বারি’র বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চীনা কোম্পানির ১২০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হৃদরোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে ‘‌পাটখাতের রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারণে অংশীজনদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে’ ভাষাসৈনিক সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক করতোয়ায় নৌ-দুর্ঘটনা: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৬

বাংলার লোকজ শিল্প ও শিকড়ের সন্ধানে

ড. মেজবাহ উদ্দিন তুহিন : এক সময়ের ঘন জঙ্গল ও শৈল শিরার এই অঞ্চলে আর্য-অনার্যসহ নানা জাতি গোষ্ঠীর আগমনে শিল্প শৌকর্যে সমৃদ্ধ হয়েছে আমাদের এই জনপদ। প্রত্যেক জনগোষ্ঠীই লালন করেছে নিজ নিজ সংস্কৃতি ও শিল্প। কালের প্রয়োজন ও সামাজিক প্রক্রিয়ায় প্রাচীন লোক শিল্পের অনেক কিছুই আজ বিবর্তিত, বিলুপ্ত ও পরিমার্জিত হয়েছে। জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে প্রাত্যহিক জীবনের ব্যবহার্য্য জিনিষপত্র নিয়ে তৈরি হয়েছে আমাদের লোক শিল্প। বর্তমানে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষের জন্য কুটির শিল্প গড়ে উঠেছে যা আমাদের আদিম লোক শিল্পেরই ধারাবাহিকতা।

আমাদের বাঙালি লোক শিল্পের খ্যাতিছিল বিশ্বজোড়া। ঢাকাই-মুসলিনশিল্প এই উপমহাদেশের লোক শিল্পের গর্ব ছিল। এখনও নানা শিল্প সামগ্রি পৃথিবীর নানা স্থানে পেঁৗঁছে গিয়ে সুনাম অক্ষুন্ন রেখেছে। আধুনিক সময়ের সকল আবিষ্কারকে আমাদের বিজ্ঞানের কল্যাণকর দিক বলে উল্লেখ করা হয়ে থাকে। বিজ্ঞান আমাদের নিত্য নতুনের সন্ধান দেয় ঠিকই কিন্তু একসময় যখন বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির আবিষ্কার বা গবেষণা ছিলনা ঠিক সে সময়েও আমাদের পূর্ব পুরুষ প্রাচীন মানবেরা আবিষ্কার করে গেছেন নানা জিনিষপত্র। বর্তমান সময়ে সেসব উপকরণ ও জিনিষপত্র লোক শিল্প হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

আামাদের দাদী-নানীরা সংসারের কাজ সেরে অলসদুপুরে বসতেন কাঁথা সেলাই করতে। বর্ষাকালে যখন চারদিকে পানি থৈ থৈ করত; অথবা সন্ধ্যার পর সাংসারিক কাজ সেরে হারিকেনের আলোয় বসতেন নানা শিল্প নৈপুন্যের কাজ নিয়ে। হারিকেনের মৃদু আলোতেই তারা ভাল দেখতেন তাদের চোখ ছিল অসাধারন জ্যোর্তিময়। সে সময়ের কাঁথা সেলাই আজ নকশী কাথা শিল্পে পরিনত হয়েছে। কাথা সেলাই এর আধুনিক রূপ যশোর স্টিচ।

কালো পাথরের বুকে বাটালীর টুক টুক শব্দে পাথর খোদাই হয়ে তৈরি হত রকমারী নকশা যা ছাঁচ নামে পরিচিত। এসব ছাঁচে তৈরি হত নানা ডিজাইনের নকশাখচিত পিঠা ও আমস্বত্ত্ব। গ্রীষ্মের অসহনীয় গরমে ব্যবহার করা হত হাত পাখার। তালপাতা শুকিয়ে বা বাঁশের চাটাই দিয়ে অথবা কাপড় দিয়ে ডিজাইন করে নাান বৈচিত্র্যের নকশায় তৈরি হত পাখা। কাপড়ের পাখায় মহিলার নানা কারুকাজের পাশাপাশি সেলাই করে লিখত ছন্দ।

হাতের নিপুনতায় বা সুতার কাজে ফুটে উঠত শিল্প নৈপুন্য। পাট থেকে তৈরি হত শিকা, বেনী, দাউন, বসার আসন, ঝুলন্ত খাট, খেলনা প্রভূতি। শোলা দিয়ে তৈরি হত টোপর ফুল ও খেলনা। শোলা গাছ শুকিয়ে কান্ড থেকে সাদা অংশ বের করে তৈরি করা হয় নানা সৌখিন সামগ্রি। বর্তমানে এসবে জরী ও চুমকির ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। বিয়ের টোপর তৈরিতে শোলা শিল্পের ব্যবহার আমাদের মানবীয় অনুভূতিতে স্পর্শ করে।

আমাদের সংস্কৃতির উপর ভিত্তি করে মৃৎসামগ্রীর অঞ্চল ভিত্তিক ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। হাঁড়ি, পাতিল, দইয়ের ভাড়, পিঠার ছাঁচ, সানকি, কলকি ঠিলা ফুলদানী, ফুলের টব, ইট, পুতুল, মটকা, ঝাঁঝর প্রভূতির ব্যবহার হত প্রতিটি গ্রামে। মৃৎশিল্পকে ঘিরে তৈরি হয়েছিল কুমোর সম্প্রদায়। কুমার চাকার মাধ্যমে মাটি ঘুরিয়ে শৈল্পিক হাতে তৈরি করেন নানা শিল্প সামগ্রী। কুমারদের তৈরি পট চিত্র, কার্টুন ও ভাস্কর্য শিল্প বিশেষ উৎকর্ষতা লাভ করেছে। আমাদের দেশের প্রত্নস্থল সমূহে থেকে প্রাপ্ত নকশা খঁচিত ইটও মাটির তৈরি নানা শিল্প সামগ্রী থেকে প্রমানিত এই শিল্প ও পেশা প্রাচীন ও পুরানো।

কাঠ শিল্পের মাধ্যমে তৈরি হয়েছে ছুতার সম্প্রদায়। খাট-পালঙ্ক, খুটি দরজা জানালা বেড়া সহ কাঠের তৈরি প্রায় প্রতিটি জিনিষে একসময় নকশা খচিত থাকত। এ ছাড়াও দেখা যায় কাঠের ফুল ফলসহ নানা উপকরণ। কাঠের ঢেঁকি আমাদের গ্রাম-বাংলার প্রতিটি ঘরের প্রয়োজনীয় উপাদান ছিল। বাঁশ বেত দিয়ে তৈরি হত চালনী, কুলা, ঢালা, ঢুলি, ঝাটা, চাটাইসহ নানা প্রয়োজনীয় সামগ্রি। উপকূলীয় অঞ্চলে নারিকেল গাছের প্রাধান্য থাকায় সেখানকার নারিকেলের ছোবড়া দিয়ে তৈরি হত এক ধরনের বিশেষ রশি। নারিকেলের খোল দিয়ে বানানো হত হুক্কা। এভাবে যুগে যুগে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের তৈরি জিনিষপত্র লোক শিল্পে পরিনত হয়েছে। যা আমাদের গৌরব ও অহংকার।

আমাদের গ্রাম বাংলার ও লোকায়ত শিল্পধারা সময়ের ঘাত প্রতিঘাতে বিলুপ্ত হতে চলেছে। সাম্প্রতিক ও আধুনিক শিল্পধারার কাছে যুগে যুগে প্রবাহমান সাধারন মানুষের জীবন ধারার সঙ্গে সম্পৃক্ত শিল্প ও সংস্কৃতি হারিয়ে যাচ্ছে। আমাদের হাসিকান্না, দুঃখ বেদনা, আচার বিচার, জীবন সংগ্রাম ও নানা সামাজিক ঘৃনায় আবৃত আমাদের লোকায়িত শিল্প। যা আমাদের সন্ধান দেয় শিকড়ের, সম্পৃক্ততা খুঁজে পাওয়া যায় নাড়ির সম্পর্কের।

বর্তমান সময়ের শিল্পধারায় লক্ষ করা যায় প্রাচ্যের আদল। যা কৃত্রিম এবং প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিয়ে অগ্রসরমান, আধুনিক জগতের নানা ইঙ্গিত মননশীল চিন্তায় ভরপুর। তবে আধুনিক শিল্পধারা যতই উন্নত হউক না কেন সেটি প্রাচীন লোকায়ত শিল্পধারার উপর নির্ভরশীল। তাই আবহমান বাংলার লোকজ শিল্প গভীর জীবনব্যদী, আমাদের প্রতিটি শিল্পের মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া যায় দেশজ উপাদানের প্রভূত ব্যবহার। যাতে রয়েছে মাটি মানুষ ও দেশের পরিচয়। বাংলাদেশের সাহিত্য, কবিতা, চিত্রশিল্প, ভাস্কর্য, সঙ্গীত, নাচ-গান, চলচিত্র, স্থাপত্য, লোক ও কারুশিল্প নিজ ভৌগোলিক সীমারেখায় একটি সতন্ত্র পরিচয়ের শিল্প। যা আমাদের আর্থসামাজিক অবস্থারও ইঙ্গিতবাহ।

আমাদের লোক ঐতিহ্যময় কারুকাজ সাধারন মানুষের জীবনের আবেগ, নান্দনিকতা নিয়ে আজও চলমান। লোকজ শিল্প সাধারন মানুষের জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বাংলাদেশের লোক শিল্প তাই অধিক শক্তিশালী, ঐতিহ্যময় এবং গৌরবের। যা মৌলিক শিল্প হিসেবেই অধিভুক্ত। আধুনিক শিল্পের বিকাশ পরিবর্তিত ও পরিমার্জিত হয়ে আমাদের শেকড়ের স্বরুপকে ভুলিয়ে দিচ্ছে যা কোন স্থির প্রতিমুখাপেক্ষী না হয়ে নীরবে নিভৃতে কালে কালে স্মিমিত হয়ে যাচ্ছে।

আমাদের ভূখন্ডে নানা পালাবদলের ফলে আমরা হারাতে বসেছি আমাদের নিজ সংকৃতি ও স্বকীয়তা। যার প্রথম সূচনা ঘটে ইংরেজ ঊপনিবেশ আমলে। কালে কালে নানা গোষ্ঠী আমাদের বহমন ঐতিহ্যময় শিল্পধারাকে থামিয়ে নিজেদের মতবাদ চাপিয়ে দিয়েছে ঠিকই কিন্তু কোন সভ্যতা গড়তে পারেনি। শুধু দখলীকৃত দেশ থেকে সম্পদ আহরন করে নিজেদের দেশের উন্নতি সাধন করেছে। তবে আমাদের দুর্ভাগ্য কালচক্রে পশ্চিমা ঊপনেবেশিক ক্ষমতাভোগকারী দেশগুলো থেকে জন্ম লাভ করেছে ইউরোপীয় বা পশ্চিমা সভ্যতা। যার যাতাকলে আমরা ঘুরপাক খাচ্ছি। দুঃখজনক যে, যে সব দেশ কখনও উল্লেখযোগ্য সভ্যতার ধারক বাহক ছিলনা তাদের সম্মিলিত সভ্যতা এখন প্রভাবশালী। তবে আমাদের জাতিস্বত্তা, নিজস্ব সংস্কৃতি ও শিকড়ের স্বরুপকে টিকিয়ে রাখার প্রয়োজনে আমাদের মনে রাখা উচিত বাংলার লোকজ শিল্প যুগে যুগে সব সময়ে শিল্পের অফুরন্ত আধার হিসেবে পরিগণিত হয়ে আসছে। যা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে তুলে ধরে টিকিয়ে রাখতে হবে।

আমাদের লোকশিল্প নিজ ভূবনে চিরভাস্বর, যার নিজস্ব প্রানবন্ত ঐতিহ্য রয়েছে। এটি সাধারন লোকের জন্য সাধারণ মানুষের সাধারণ উপাকরণে তৈরি। ফলে লোকজ শিল্পসামগ্রি সকল স্তরের মানুষের কাছে আবেদনময়ী। আমাদের লোকজ শিল্প কোন একক শিল্পীর শিল্প কর্ম নয়। প্রাচীনকাল থেকে এটি একটি সুসংহত সমাজ থেকে উদ্ভূত হয়েছে। কোন আনুষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমেও সৃষ্ট হয়নি। প্রাত্যহিক জীবনের প্রয়োজনেই পূর্ব পুরুষদের লোকবিশ্বাস সম্পৃক্ত হয়ে নানা প্রতীকী অলংকরণের মাধ্যমে প্রসারিত হয়েছে। যা আমাদের ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে গ্রহণযোগ্য হয়ে শরীর ও মনের সাথে মিশে নিজ স্বত্তায় রূপায়িত হয়েছে। এটি দর্শন ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে গ্রহণযোগ্য।

ইংরেজী ফোকলোর এর একটি শাখা লোক শিল্প। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নিজ অবয়বে এই শিল্পের বিস্তার ও ব্যবহার রয়েছে। খ্রিষ্টপূর্ব চতুর্থ শতকের গ্রীক পন্ডিত ইতিহাস শাস্ত্রের জনক হোরোডোটেস এই শিল্পের প্রতি আগ্রহ দেখিয়েছেন বলে জানা যায়। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে বিশারদগণ এ নিয়ে চিন্তা করলেও তেমন বিস্তার লাভ করেনি। ১৮৪৬ সালে ডব্লিউ জেটমাস ফোকলোর শব্দ ব্যবহার করে সঠিক নামকরণ করেন (আহমদ তোফায়েল, ১৯৮৫)। পরবর্তীতে দেশকাল ছাড়িয়ে নিজ অঞ্চলের সাথে তাল মিলিয়ে মৌলিক ও উন্নততর কিছু সৃষ্টির বাসনায় শিল্পী ও তার সময়কারদের আবেগ জড়িয়ে যায় শিল্পকর্মের সাথে। লোকশিল্পীরা সৃজনশীল আবেগের অভিব্যক্তি ঘটান তাদের শিল্পকর্মের মাধ্যমে। সৃষ্টির আনন্দে মটিফগুলোকে আঁকড়ে ধরে নতুন অবয়বের সূচনাও করেন তারা। সৃজন প্রক্রিয়া, রুচি ও চাহিদার কথা ভেবে শিল্পি তার শিল্পকর্ম তৈরি করেন কখনও খালি হাতে আবার কখনও সাধারণ উপকরণ সূচ, কাঁচি, তুলি, দাও-হাতুড়ী, বাটালী, কুঠার প্রভুতি ব্যবহার করে। অতি সাধারন উপকরণ মাটি, কাপড়, কাঠ, বাঁশ, বেত, শোলা, গমের নাড়া, ডাল, খেজুর পাতা প্রভূতি ব্যবহার করেই কুশলী হাতের স্পর্শে তৈরি হয় নানা অবয়ব ও সহজ সরল আকৃতির জিনিষ।
আমাদের লোকশিল্প অনেক পুরানো ও বি¯তৃত। নকঁশীকাথা, লোকচিত্র, পাখা, পাটি, শিকা, খেলনা পুতুল, মাটির ফলক, দারুশিল্প, বাঁশ ও বেতের বেড়া, কলকি, হুক্কা, লোক অলঙ্কার, লোক বাদ্যযন্ত্র, নকশীপিঠা, নকর্শীসাঁচ, মাছ ধরার উপকরণ, দেয়ালচিত্র, ঘুড়ি, মুখোশ, পিঁড়িসহ নানা কিছু নিয়ে লোক শিল্পের বিস্তৃত জগৎ। অপূর্ব এসব রচনা শৈলী যুগযুগান্তরের উদ্ভাবনী শক্তি ও অভিজ্ঞতার ফসল। একসময় এই শিল্প নিজস্ব চাহিদার প্রেক্ষিতে তৈরি হলেও কালক্রমে বানিজ্যকীকরণ শুরু হয়। এভাবেই শিল্পের নিজস্ব ধারার পরিবর্তন ও বিলুপ্তি ঘটতে থাকে।

অন্যদের অভিরুচির কারণে নিজস্ব বৈশিষ্ট ও অবয়বের পরিবর্তন ঘটতে থাকে। চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে গুনগত মানের পরিবর্তন হয়। চলে যায় গন্ডির বাইরে। সৌখিন লোকদের রস পিপাসা মিটাতে গিয়ে লোক শিল্প স্বকীয়তা হারায়। কারুবিপনীর দৌরাত্নের ফলে এই শিল্পে নাভিশ্বাস নেমে আসে, শিল্পের ঐতিহ্য নষ্ট হওয়ায় শিল্পিরাও হারিয়ে ফেলে দরদ ও অনুভূতি। যন্ত্রচালিত শিল্পের প্রসার, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে আমাদের শিল্পকে চড়াদামে কিনে পাশ্চত্যে পাচার করে দেয়া হচ্ছে। নষ্ট করে দেয়া হয়েছে আমাদের অতীত। লোকশিল্পের লালন ক্ষেত্র আমাদের গ্রাম বাংলা, কিন্তু এই গ্রামীন সমাজ কাঠামোতে ফাটল ধরানো হয়েছে। এক শ্রেণীর লোভকাতর মানুষের কারণে লোক শিল্পের সাতন্ত্র ধারা ব্যাহত হচ্ছে। এ সবের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আমাদের এই ঐতিহ্যে আর কত দিন টিকে থাকবে তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।
লেখক : গবেষক ও কলামিষ্ট, পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত), তথ্য ও গণসংযোগ বিভাগ, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin24.com

This will close in 1 seconds