বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:১৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি এবং বৈষ্যম্য কমিয়ে মাদকমুক্ত ব্যক্তিদের অনুপ্রাণিত করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সাউথইস্ট ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ইসলামী ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ব্র্যাক ব্যাংকের ৮০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন মানসম্মত সুশিক্ষাই টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার পাটকাঠি আস্ত রেখে পাটের আঁশ ছাড়ানোর যন্ত্র আবিষ্কার করলো বারি’র বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চীনা কোম্পানির ১২০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হৃদরোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে ‘‌পাটখাতের রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারণে অংশীজনদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে’ ভাষাসৈনিক সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক করতোয়ায় নৌ-দুর্ঘটনা: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৬

শিক্ষক মোবারক আলীর ‘আক্ষেপের চিঠি’ ফেসবুকে ভাইরাল

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশনের টিকিটঘরে লাইনে দাঁড়িয়েও ট্রেনের অগ্রিম টিকিট পাননি মোবারক আলী শেখ নামের অবসরপ্রাপ্ত এক শিক্ষক। তাই হাতে লেখা একটি পত্রে টিকিট না পাওয়ার দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি। সেই চিঠি এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন মানুষের ওয়ালে ঘুরপাক খাচ্ছে।

তবে রেল কর্তৃপক্ষ বলছেন, প্রথমত অভিযুক্তদের সেখান থেকে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। এরপর তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটতে যান নওগাঁ সদর উপজেলার দোগাছী গ্রামের বাসিন্দা মোবারক আলী। তিনি নওগাঁ কেডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকও। ওই দিন লাইনে দাঁড়িয়েও টিকিট না পেয়ে সেখান থেকে ফিরে আসেন।

এরপর আক্ষেপ করে হাতে লেখা পত্রে ওই শিক্ষক লিখেছেন, ‘সান্তাহার রেলওয়ে টিকিট কাউন্টারে দাঁড়িয়েছি রোববার সকাল ৬ট ২২ মিনিটে। ১ নম্বর কাউন্টারে আমি প্রথম ব্যক্তি। আশা ছিল দুটি টিকিট পাবো এসি স্নিগ্ধা, ১৫ তারিখ ট্রেন কুড়িগ্রাম। সকাল ৮ টায় কাউন্টার খোলা হলো। টিকিট যিনি দিচ্ছেন উনি একজন নারী। বললাম ‘মা’ আমাকে এসির দুটি টিকিট দেন। উনার ওপরের বস টিকিট কাউন্টারের হেড। তার নির্দেশ মোতাবেক আমাকে না দিয়ে এসি স্নিগ্ধার সব টিকিট তার বসকে দিয়ে দিলেন।’

তিনি আরও লিখেন, ‘আমি কয়েক বার তাদের কাছে অনুরোধ করেও ব্যর্থ হয়েছি। আমার বয়স ৬৫ বছর পেরিয়েছে। আমি একজন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক। বসের কথা রানীনগরের এসিল্যান্ডের সব টিকেট লাগবে। তাই তিনি আমাকে দুটি টিকিট দিতে পারবেন না। আমি অনেক দুঃখ পেয়েছি। কষ্ট পেয়েছি। বুঝাতে পারছি না নিজের মনকে। কাউন্টার থেকে বেরিয়ে এলাম।’

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মোবারক আলী শেখ বলেন, ‘পত্রে যা লিখা আছে সবই সঠিক। আমার চাওয়া ছিল শুধু দুটি টিকিট। বার্ধক্য জনিত বা বয়স্ক যারা টিকিট কিনতে লাইনে দাঁড়ায় সবাইকে সম্মান করা উচিত বলে মনে করি। তিনি শিক্ষক বা যে শ্রেণির মানুষই হোক না কেন। পরে কয়েকটি জায়গা থেকে ট্রেনের টিকিট দেওয়ার জন্য আমাকে ফোন করা হয়েছিল যা প্রত্যাখ্যান করেছি।’

স্টেশনের বুকিং সহকারী নাসরিন সুলতানা বলেন, ‘স্টেশনের দুই কাউন্টার থেকে নিয়মিত এবং অগ্রিম টিকিট দেওয়া হয়। তার (শিক্ষক) চাহিদা ছিল এসি চেয়ারের দুটি টিকিট। কম্পিউটারে যখন সার্চ করা হলো তখন একটি টিকিট দেখা যায়। যেহেতু সিট নাই এজন্য তাকে এসি কেবিনের কথাও বলেছিলাম কিন্তু তিনি নিতে চাননি। তিনি অন্য কোনো ট্রেনের টিকিটও নিতে চান না। পরে তিনি ফেসবুকে ভুল তথ্য দিয়েছেন। আমি নাকি এসি টিকিট প্রিন্ট করে বসের হাতে দিয়েছি। যা আমার কাছেও দুঃখজনক মনে হচ্ছে। সে সময় আমার পাশের কাউন্টার থেকে কয়েকটি এসি টিকিট বিক্রি হয়েছে। তিনি কেন আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেন বুঝতে পারছি না।’

জানতে চাইলে সান্তাহার রেলওয়ে স্টেশনের প্রধান বুকিং মনিরুল করিম মুন বলেন, ‘অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই কাউন্টার থেকেও টিকিট বিক্রি হয়। ওই শিক্ষককে টিকিট দেওয়ার চেষ্টা করতে গিয়ে দেখা যায় তার চাহিদা মতো টিকিট নাই।’ এছাড়া সান্তাহার রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার রেজাউল করিম ডালিম জানান, ওইদিন টিকিট বিক্রির সময় কী হয়েছিল জানা নেই। তবে ফেসবুকে একটি চিঠি দেখে বিষয়টি জেনেছি। কর্তৃপক্ষের কোনো নির্দেশনা অমাদের হাতে পৌঁছায় নি।

এ বিষয়ে রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পশ্চিম) অসীম কুমার তালুকদার জানান, টিকিট থাকা সত্বেও তা না পেলে প্রতিবাদ করাই উচিৎ। এনিয়ে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে, তদন্ত হবে। প্রথম কথা তাদের সেখান থেকে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin24.com

This will close in 1 seconds