বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি এবং বৈষ্যম্য কমিয়ে মাদকমুক্ত ব্যক্তিদের অনুপ্রাণিত করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সাউথইস্ট ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ইসলামী ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ব্র্যাক ব্যাংকের ৮০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন মানসম্মত সুশিক্ষাই টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার পাটকাঠি আস্ত রেখে পাটের আঁশ ছাড়ানোর যন্ত্র আবিষ্কার করলো বারি’র বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চীনা কোম্পানির ১২০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হৃদরোগ ঝুঁকি মোকাবেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে ‘‌পাটখাতের রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারণে অংশীজনদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে’ ভাষাসৈনিক সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক করতোয়ায় নৌ-দুর্ঘটনা: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৬

তাহরিম রিদা ২২ বছর পর পাকিস্তান থেকে বাবার ঠিকানা পেলেন

মোয়াজ্জেম হোসেন মালদার, ফেনী : পাকিস্তানে অবস্থান করে ২২ বছর পর ফেইসবুক ‘আমাদের ফেনী’ গ্রুফের মাধ্যমে বাংলাদেশে নিজ পরিবারের সন্ধান পেল তাহরিম রিদা।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩ টা ৫৭ মিনিটে তার ব্যক্তিগত আইডি Tahreem Rida হতে  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি স্টাটাস দেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন’ আসসালামু আলাইকুম, সবাইকে আমি এখানে আমার বাবার পরিবার খুঁজতে এসেছি। আমার বাবা ১৯৮৭ সালে পাকিস্তানে আমার মাকে বিয়ে করেছিলেন।

তিনি বাংলাদেশের ফেনী থেকে এসেছিলেন। তাঁর নাম ছিল মুহাম্মদ কাসেম জসিম , আমার দাদার নাম তোফাজ্জল হক , যিনি সম্ভবত আমার পিতার শৈশব কাল অতিবাহিত করেছিলেন।

আমি আমার বাবার পরিবার সম্পর্কে খুব বেশি বা প্রায় কিছুই জানি না। গ্রুফে নিজ চাচার একটি ছবি দিয়ে তিনি বলেন’ আবু সাদিক আমার বাবার বড় ভাই। যদি কেউ এই পরিবার সম্পর্কে কিছু জানেন, তবে আমার পরিবারের সাথে দেখা করা যাবে, এটা আমার জন্য খুবই আনন্দের হবে যা, আমি কখনও দেখিনি।

পোস্ট দেওয়ার ২৩ মিনিটের মধ্যে তাহরিম এর বাবার পরিবারের সাথে মেয়েটির পরিচয় হয়। মেয়েটির  বাবার বাড়ি দাগনভূঁইয়া উপজেলার ৩ নং পুর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের  হাসান গনিপুর গ্রামে করিম মিয়ার বাড়ি।

পোস্ট দেওয়ার ২৩ মিনিটের মধ্যেই তাহরিমের বাবার (আবুল কালাম আজাদ (ভাগিনা) এর ভাই বোন ও ভাইয়ের ছেলের সাথে কথা হয়। তাহরিমের দাবি ‘কলেজে বা বাইরে গেলে তার বাবার পরিচয় জানতে অনেকেই বিরক্ত করে।

পিতৃপরিচয় না থাকায় অবহেলিত হতে হয়েছে ২২ বছর। তাহরিমের বাবা পাকিস্তান থাকাকালীন তার মা মেহবুবাকে বিয়ে করেন। পাকিস্তানে তার বাবা অসুস্থ হয়ে মারা যান।এরপর তার পরিবারের সাথে আর কোন পরিচয় ঘটেনি।

তার বাবা জীবিত থাকা কালিন দেশে সে চিঠিতে উল্লেখিত ঠিকানা সংগ্রহ করে তাহরিম ফেনী নামক শব্দটি পায়। পরে ফেনী গুগলে সার্চ করে জানতে পারে এটি একটি জেলা। পরবর্তীতে ফেনী সার্চ করে আমাদের ফেনী নামক গ্রুফটি পায়।এরপর যাবতীয় ডিটেইলস সহ ফেসবুকে ইংরেজিতে পোস্ট করেন।

এরপর ট্রান্সলেশন করে বাংলায় পোস্ট দেন এডমিন প্যানেল। দাগনভূঁইয়ার ওসি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ স্থানীয় সোশ্যাল এক্টিভিটিসদের মাধ্যমে তাহরিমের বাবার পরিবারের কাছে বার্তা পৌছে যায়। বর্তমানে উভয় পরিবার একে ওপরকে এত বছর পর পেয়ে আবেগে আপ্লুত।

পৈতৃক নিবাসের পরিচয় পেয়ে তাহরিম রিদা বলেন’ ফেনীর মানুষকে কি বলে ধন্যবাদ দিব তা বলার ভাষা আমার নেই। আমাকে যারা পৈতৃকভূমি খুঁজে পেতে সহায়তা করেছে সবাইকে আল্লাহ নেক হায়াত দান করুক।

এলাকার কয়েকজন মুরব্বিরা  জানান, যারা শৈশব কালে খেলাধুলায় বা পড়াশোনায় অংশগ্রহণ করেন তারা বলেছেন ১৯৬৫ সালের দিকে  কাশেম তার এক আত্মীয়ের সাথে  ৭/৮ বছর বয়সে অভাবের  তাড়নায় পাকিস্তানের  রাওয়ালপিন্ডিতে চলে যান। সেখানে  তিনি হারিয়ে যান।

পরে যোগাযোগ করলে আশির দশকের দিকে তার বড় ভাই আবু সাদেক করাচিতে তাকে দেখে আসেন। পরবর্তীতে বড় ভাই সাদেক দেশে  মারা যান। সাদেকের ও তিন মেয়ে। মেয়ের  স্বামীসহ তাদের বাড়িতে বাস করছেন।

আবুল কাশেম জসিমের ভাগিনা মহিউদ্দিন টিপু জানান, তার মামা জীবিত থাকাকালীন তার বাবা ও বড় ভাই  আবু সাদেক এর সাথে যোগাযোগ ছিলো। অনেক দিন মামা মারা যাওয়ার পরে আর কোন খোঁজ খবর নেই। গত বৃহস্পতিবার মামাতোবােন রিদার সাথে ফেইসবুকের সুবাধে কথা হয়েছে। এখন আমরাও খবরাখবর নিয়ে রক্তের সম্পর্কের বন্ধন সৃষ্টি হয়েছে।  আমরা খুব খুশী। সহযোগিতা কারিদেরকে শুকরিয়া ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ।

দাগনভূঞা ৩ নং পূর্বচন্দ্রপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড (হাসানগনিপুর-চাঁনপুর) ইউপি মেম্বার নজরুল ইসলাম মিন্টু বলেন, কয়েকবছর পূর্বে তাদের জায়গা সম্পত্তি জরিপ করার সময় আবুল কাসেম নামে কাগজপত্র দেখতে পাই।

তবে এলাকাবাসীর বয়োবৃদ্ধদের থেকে জানতে পারি তিনি সম্ভবত ১৯৬৬ কিংবা ৬৭ সালে পাকিস্তান গিয়ে আর ফিরে আসেননি। তার বড় ভাই আবু সাদেক (মৃত) দেশে আসার পর ভাইর সাথে যোগাযোগ ছিলো। বড় ভাই মৃত্যুর পরে আর কোন যোগাযোগ ছিলোনা বলে শুনেছেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin24.com

This will close in 1 seconds