সোমবার , ২৪ অক্টোবর ২০২২ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

আগাম শীতে কুমড়ো বড়ি তৈরীতে ব্যস্ত কারিগররা

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন
অক্টোবর ২৪, ২০২২ ১:২৯ পূর্বাহ্ণ

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোরের গুরুদাসপুরে নবাগত শীতের আমেজে কুমড়ো বড়ি বানিয়ে সফলতার হাতছানিতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন কারিগররা।
ডাল রোদে শুকিয়ে তৈরি করা হয় বড়ি। এটি তৈরি করে স্বাবলম্বী হয়েছেন নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর কারিগর পাড়া গ্রামের প্রায় অনেক পরিবার। একে মৌসুমি পেশা হিসেবে নিয়েছে তারা। আগে শীতকালে এই পণ্যটির বেশি চাহিদা থাকতো। সেই কারণে শুধু শীতকালেই বড়ি তৈরি হতো। সারাদেশে চাহিদা ক্রমশ বেড়েছে। ফলত,পরিবারগুলোর ওপর তাগিদ সৃষ্টি হয়েছে সারাবছরই সরবরাহের।

সরেজমিনে উপজেলার নাজিরপুরে গিয়ে দেখা যায়, বড়ি তৈরি করে শুকানোর জন্য সারি সারি রোদে দেওয়া। নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও এই কাজ করছেন। এটি তৈরির প্রধান উপকরণ এংকার ডাল, মাষকলাইয়ের ডাল,খেসারির ডাল এবং সামান্য মসলা দিয়ে বানানো হচ্ছে। স্থানীয় বাজারে প্রতিকেজি ১২০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি।

প্রথমে পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা ডাল পানিতে ভেজাতে হয়। এরপর মেশিনে ভাঙ্গিয়ে মিশ্রণ তৈরি করা হয়।

তারপর মিশ্রণে বড়ির উপকরণ তৈরি হয়। রৌদ্র উজ্জ্বল ফাঁকা স্থান, বাড়ির আঙিনায় খোলা জায়গায় ভোর থেকে তা তৈরির কাজ শুরু হয়। টিন বা পাতলা কাপড়ে সারি সারি এটি রোদে রাখা হয় শুকানোর জন্য। দুই থেকে তিন দিন টানা রোদে শুকাতে হয়। অতপর বিক্রির উপযোগী হয়।

কারিগররা জানান, এই বড়ি দিয়ে বোয়াল, বাইম,কৈ,শিংবা শোল মাছের ঝোল বেশ মুখরোচক ও জনপ্রিয়। এটি বানানোর উপযুক্ত সময় শীতকাল। তবে চাহিদা বাড়ায় এখন সারাবছরই তৈরি ব্যবস্থা করা হচ্ছে। নাজিরপুর গ্রামের নারীরা শীতের শুরুতে ব্যস্ত বড়ি বানানোয়। বাড়ির আপন চাহিদা মিটিয়ে এটি হাত বদল হয়ে চলে যাচ্ছে দেশের নানা প্রান্তে।

বড়ি তৈরির কারিগর সুমাইয়া বেগম বলেন, ৮বছরের অভিজ্ঞতা আমার। মাসে ২০থেকে ৩০ হাজার টাকা আয় হয়। সেটি দিয়ে পরিবার ও নিজের চাহিদা মিটিয়ে থাকি।

তিনি আরো জানান,আমাদের দেখে এলাকার নারীরা এই কাজে এখন ব্যস্ত। শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে তা বানানোর ধুম পড়ে যায়। এখানকার বড়ি সুস্বাদু। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের নাটোর,বগুড়া,রাজশাহী ও ঢাকায় সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এগুলো সরবরাহ করা হয়।

বড়ি তৈরী কারিগর রাশিদুল ইসলাম জানান, এই পেশা প্রায় ১৫ বছর ধরে করি। তাই আজও তা করে আসছি। বড়ি মূলত ডাল,মাষকলাই, চালকুমড়া, জিরা, কালোজিরা, মোহরী দিয়ে তৈরি করা হয়। প্রতি কেজি ১২০-১৫০ টাকা করে পাইকারি বিক্রয় করা হয়।
দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিনিয়তই পাইকাররা এসে আমাদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে যায়। এছাড়া স্থানীয় বিভিন্ন হাটেও খুচরা বিক্রয় করা হয় এই পণ্য।

রাজশাহী থেকে বড়ি কিনতে আশা ব্যবসায়ী আয়নাল আলী বলেন, এখানকার বড়ি যেমন নরম, তেমনি খেতেও বেশ ভালো লাগে। একবার যে এটি খায়, পরেরবার আবার খুঁজে কিনে নিয়ে যায়। আমার কিছু নিজস্ব খরিদ্দার আছেন, যাদের প্রধান পছন্দ এখানকার বড়ি। অন্য বড়ি কম দামে পাওয়া গেলেও নিতে চান না গ্রাহকরা। তাই বাধ্য হয়ে তাদের জন্য এখান থেকেই নিয়ে যাই।

সর্বশেষ - ক্যাম্পাস

আপনার জন্য নির্বাচিত

লালমনিরহাটে তিস্তা নদীর মহাপরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন

ইলিশ সম্পদ উন্নয়নে বাধা দেওয়া দুর্বৃত্তদের প্রতি ন্যুনতম অনুকম্পা থাকবে না : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

জেসিআই তরুণ উদ্যোক্তা পুরস্কার পেলেন ওয়ালটনের পরিচালক তাহমিনা তান্না

পদ্মা সেতুর পিলারের সাথে ‘ফেরি জাহাঙ্গীরের’ সঘর্ষের ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন

জাবি ক্যাম্পাস ও হল খোলার দাবিতে মশাল মিছিলের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা

শেরপুরে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে গৃহবধুর মৃত্যু

‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন পদ শূন্য রয়েছে ৩ লাখ ৬৯ হাজার ৪৫১টি’

সেই ক্রাইস্টচার্চে লজ্জায় ডুবল বাংলাদেশ

ডিজিটাল যুগে সজীব ওয়াজেদ জয়ের মতো নেতৃত্বই প্রয়োজন : তথ্যমন্ত্রী

ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক দ্বিপাক্ষিক, বিশ্বস্ততার ও ন্যায্যতার: এলজিআরডি মন্ত্রী

ব্রেকিং নিউজ :

বাঙলা প্রতিদিন

This will close in 1 seconds