সোমবার , ২৪ অক্টোবর ২০২২ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

কার্পাস তুলা চাষে মহাপরিকল্পনা

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন
অক্টোবর ২৪, ২০২২ ১:২৪ পূর্বাহ্ণ

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : বিভিন্ন পরিসংখ্যান মতে, ১৮৫৬সালের পর আমাদের দেশে আর ঢাকাই মসলিন কাপড় তৈরী হয়নি। একে একে কেটে গেছে পাকিস্তান আমল ও বাংলাদেশের ৪৮বছর।  এ ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কারো ছিল না কোন নজর।
তবে একটি সময় এ নজর পড়ে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। বাঙালীর হারানো গৌরব মাখানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে তার পরিকল্পনায় ২০১৪সালে মসলিন ফিরিয়ে আনতে নির্দেশনা দেন। তার নির্দেশনা মোতাবেক কাজ শুরু হয়। ২০১৮সালে চালু করেছিলেন সোনালী মসলিন তৈরীর প্রযুক্তি ও মসলিন কাপড় পুনরুদ্ধার প্রকল্প। সরকারের প্রচেষ্ঠা ও দেশের মসলিন গবেষকদের কঠোর পরিশ্রমে মসলিন কাপড় উৎপাদনে সক্ষম হয় তারা।
এখন গবেষকদের চেষ্ট্য়া চলছে মসলিন কাপড় তৈরীর মূল উপকরণ ফুটিকার্পাস তুলা চাষ সম্প্রসারণ নিয়ে গবেষনা। ইতিমধ্যেই তৈরী হয়েছে সম্ভাবনা। গবেষকদের আশা এভাবেই ধাপে ধাপে আমাদের দেশ মসলিন কাপড় উৎপাদনে পথে এগিয়ে যাবে।
গাজীপুরের কাপাসিয়ায় যেভাবে মেলে ফুটি কার্পাসের খোঁজ
এ প্রকল্পের অন্যতম গবেষক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞানের অধ্যাপক মো. মনজুর হোসেন জানান, মসলিন কাপড়ের নমুনা পেলে তার সুতার ডিএনএ সিকুয়েন্স বের করে ফুটি কার্পাস গাছের ডিএনএর সঙ্গে মিলিয়ে দেখাই ছিল তার দলটির প্রধান কাজ। কিন্তু হাতে কোনো মসলিন কাপড়ের নমুনা নেই, নেই ফুটি কার্পাসের কোনো চিহ্নও। ছিল শুধু সুইডস গবেষক ক্যারোলাস লিনিয়াসের লেখা স্পেসিস প্লান্টেরাম, আবদুল করিমের ঢাকাই মসলিনের মতো কিছু বই। এর মধ্যে ক্যারোলাস লিনিয়াসের বইতে মসলিন কাপড় বোনার জন্য ফুটি কার্পাস উপযুক্ত বলে উল্লেখ ছিল। এই গাছ পূর্ব ভারত তথা বাংলাদেশে চাষ হতো বলে সেখানে লেখা রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, ফুটি কার্পাস বন্য অবস্থায় বাংলাদেশে কোথাও টিকে থাকার সম্ভাবনা আছে। এ ধারণার ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বন্য অবস্থায় পাওয়া তুলার জাত সংগ্রহ, নিজেদের গবেষণা মাঠে চাষ করে পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পরিকল্পনা করা হয়।
গাছটি খুঁজে পাওয়ার জন্য প্রথমে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার এক শিক্ষার্থীকে দিয়ে এর ছবি আঁকানো হয়। সেই ছবি দিয়ে খবরের কাগজে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। বিটিভিতে প্রচারও করা হয়। এর মধ্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।
এটা দেখে গাজীপুরের কাপাসিয়া এলাকার একটি কলেজের অধ্যক্ষ মো. তাজউদ্দিন ফুটি কার্পাসের সন্ধান চেয়ে স্থানীয় বিভিন্ন স্কুল কলেজে প্রচারপত্র বিলি করেন এবং মাইকিং করেন।
এর প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের মার্চ মাসে গাজীপুরের কাপাসিয়া ও রাঙামাটি থেকে এই গাছের খবর আসে। গবেষকেরা গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করেন। এরপর রাঙামাটির বাঘাইছড়ি, সাজেক, বাগেরহাট, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম থেকে মোট ৩৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। নমুনা হিসেবে নেওয়া হয় গাছের তুলা, বীজ, পাতা, কান্ড ও ফুল। গবেষকেরা কাপাসিয়ার একটি গাছের জাতের সঙ্গে স্কেচের (আঁকা ছবির) মিল পান।
এছাড়াও দীর্ঘদিন পরিশ্রমের পর  বিদেশের জাদুঘরে থাকা মসলিন কাপড়ের ডিএনএ সিকুয়েন্স বের করেন। গবেষকেরা এই মসলিনের ডিএনএর সঙ্গে আগে সংগৃহিত কাপাসিয়ার ফুটি কার্পাস গাছের মিল পান অবশেষে। তারা নিশ্চিত হন, সেটিই তাঁদের কাঙ্খিত জাতের ফুটি কার্পাস। স্থানীয় মাদ্রাসা শিক্ষক আবদুল আজিজ নামের এক ব্যক্তি এই কার্পাসের সন্ধান দিয়েছিলেন। খুশি হয়ে এই কমিটির পক্ষ থেকে তাঁকে একটি মোবাইল ফোন উপহার দেওয়া হয়।
এদিকে গাজীপুরের -৪ আসনের সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি উদ্যোগ নেন কাপাসিয়ার সেই হারানো কার্পাস চাষ সম্প্রসারণে। তিনি যোগাযোগ করেন তুলা উন্নয়ন বোর্ডের সাথে। কৃষকরার এগিয়ে আসেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মসলিনের স্বপ্ন বাস্তবায়নে এ কাপর উৎপাদনের মূল উপকরন কার্পাস তুলার যোগানের পথ খুলে দেয়ার এখন সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। যা শুরু হয়েছে এ কাপাসিয়া থেকেই। আর এখন গাজীপুরের কাপাসিয়া, শ্রীপুর, নরসিংদী ও ময়মনসিংহে ফুটি কার্পাসের চাষ হচ্ছে।
সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি বলেন, ঐতিহাসিকদের মতে, কাপাসিয়ার নামকরনটাই মূলত কার্পাস তুলার সৌজন্যে। মোঘল আমল থেকেই আমাদের দেশের প্রচুর মসলিন কাপড় তৈরী হতো। যার মূল উপকরণ ছিল এ কার্পাস তুলা। তবে একটি সময় মসলিন কাপড় তৈরী বন্ধ হয়ে গেলে এ তুলার চাষও বন্ধ হয়ে যায়। ধীরে ধীরে তা বিলুপ্তও হয়ে যায়। এখন যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে মসলিন ফিরে এসেছে সেজন্যই মূলত এর চাষ সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ আমরা নিয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা আমরা ঐতিহ্যে ফিরছি। আমাদের কাপাসিয়ায় ঐতিহ্যে ফিরছে। এছাড়াও কৃষকরাও এতে লাভবান হবেন।
প্রকল্পের পরিচালক আইয়ুৃব আলী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছায় আবার মসলিন ফিরে এসেছে এটা পুরো জাতীর জন্য একটি ভালো খবর। এখন আমরা মসলিন তৈরীর মূল উপকরনের যোগানের দিকে (ফুটি কার্পাস তুলা চাষ) নজর দিয়েছি। ইতিমধ্যেই ময়মনসিংহের বিজিএমসির জমিতে চার একর, গাজীপুরের তুলা উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে ৭বিঘা, নরসিংদী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জমিতে ফুটি কার্পাসের চাষ করা হয়েছে। এছাড়াও কাপাসিয়া ও শ্রীপুরের ৪০জন চাষীর মধ্যে প্রদশর্নী দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে কৃষকদের চাষাবাদের উপযোগী করে ফুটি কার্পাসের উন্নত জাত বের করে আনা।
গাজীপুর তুলা উন্নয়ন বোর্ডের কটন এগ্রোনমিষ্ট কৃষিবিদ আব্দুল ওয়াহাব বলেন, আমরা সারা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সংগ্রহ করেছি ১৬টি ফুটি কার্পাসের জাত। এর মধ্যে মসলিন কাপড় তৈরীর জাতটি পেয়েছি কাপাসিয়া থেকে (এসআর ২৫)। এখন এ জাতটি উন্নত করা নিয়ে গবেষনা চলছে। আমাদের আশা বিভিন্ন জাতের সংমিশ্রনে শীগ্রই আমরা একটি উন্নত জাত সামনে আনতে সক্ষক হবো। যা কৃষকরা চাষ করে লাভবান হতে পারে।
উইকিডিয়িার তথ্য মতে, বিলুপ্ত হওয়া ঢাকাই মসলিনের প্রধান উপকরণ এই ফুটি কার্পাস গাছ থেকে উৎপন্ন তুলা। ফুটি কার্পাসের বোটানিক নাম গোসিপিয়াম আরবোরেটাম ভার নেগেøক্টা। এ তুলা খুব সাধারন কোন তুলা নয়। এর গাছের পাতা দেখতে অনেকটা মেপলের মতো। প্রতি বসন্তকালে ধূসর পলিমাটিতে এই গাছ জন্মতো। আর পূর্নবয়স্ক গাছে বছরের দুবার হলুদ রঙের ড্যাফোডিলের মতো ফুল হতো। সেই ফুল থেকে পাওয়া যেতো তুষার শুভ্র তুলা। পৃথিবীতে বর্তমানে যে তুলা উৎপাদিত হয় এর ৯০শতাংশ হচ্ছে মধ্য আমেরিকা থেকে আসা গোসিপিয়াম হিরসুটাম জাতের তুলা।
তার আঁশ হচ্ছে সরু ও লম্বা আকৃতির। কিন্তু ফুঁটি কার্পাস থেকে যে তুলা হয় তা খাটো ও মোটা ধরনের। কার্পাস তুলা মেশিনে ব্যবহার করে কাপড় বোনার উপযোগী ছিল না। তবে স্থানীয়রা তাদের এ তুলাকেই তাদের নিজস্ব পদ্ধতিতে ব্যবহার উপযোগী করে  প্রায় ১৬টি বিভিন্ন ধাপ পেড়িয়ে  চড়কায় কেটে মাসের উপর পরিশ্রম করে ঢাকাই মসলিন বোনার উপযোগী করে তুলতেন।

সর্বশেষ - ক্যাম্পাস

ব্রেকিং নিউজ :

বাঙলা প্রতিদিন

This will close in 1 seconds