রবিবার , ৬ নভেম্বর ২০২২ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

বিএনপির অযৌক্তিক আচরণের শেষ কোথায়

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন
নভেম্বর ৬, ২০২২ ৮:৪৮ অপরাহ্ণ

ইমামুল ইসলাম :

  • (বিএনপি তার অযৌক্তিক আচরণ পরিত্যাগ করে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক পথে হাঁটুক, আলাপ-আলোচলার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করুক, শান্তিপূর্ণভাবে সভা-সমাবেশ করুক; নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ করে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে সুসংহত ও শক্তিশালী করুক এটাই সবার প্রত্যাশা)

রাষ্ট্র পরিচালনায় ক্ষমতার পালাবদল ঘটে নির্বাচন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। কোনো রাজনৈতিক দল জনমত তৈরি করে এবং জনপ্রত্যাশা পূরণের অঙ্গীকার নিয়ে নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ এবং সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের মাধ্যমে বিজয় লাভ করে সংসদে প্রতিনিধিত্ব করে, সরকার গঠন করে। আবার কেউ সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করে। সব দলই কিন্তু জনকল্যাণের কথা বলে রাজনীতি করে। কিন্তু বাংলাদেশে বিএনপির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে কিছু অযৌক্তিক আচরণ পরিলক্ষিত হয়েছে।
বিএনপির বর্তমান মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ করবে না বলে বিভিন্ন জনসভায় বক্তব্য দিচ্ছেন। কিন্তু এ ব্যবস্থায় ফিরতে গেলে অনেক আইনি জটিলতা মোকাবেলা করে ফিরতে হবে। সেটা কি আদৌ সম্ভব? দেশের সর্বোচ্চ আদালত এ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে; এখনো কি এ ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলা কতটুকু যুক্তিসম্মত?
তবে এর আগে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জাতীয় সরকারের কথা বলেছেন। কিন্তু জাতীয় সরকারের রূপরেখা কী হবে তা নিয়ে তিনি বা তাঁর দল সুস্পষ্টভাবে কোনো কিছু উল্লেখ করতে পারেননি। তত্ত্বাবধায়ক ও জাতীয় সরকারের বিষয়ে সুপ্রিমকোর্টের কোনো নির্দেশনা নেই। তারপরেও বিএনপি এ এজেন্ডা নিয়ে মাঠ চাঙা করার আদৌ কোনো আইনগত ও নীতিগত ভিত্তি আছে? তাছাড়া তত্ত্বাবধায়ক, নাকি জাতীয় সরকারÑ এ দোদুল্যমানতার মধ্যে থাকাও বিএনপির কতটুকু যৌক্তিক আচরণ?
সম্প্রতি বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশগুলোতে দুটো চেয়ার খালি রেখে সভা-সমাবেশ পরিচালনা করতে দেখা যায় নেতাকর্মীদের। এর একটি চেয়ার বেগম জিয়ার, অপরটি তারেক রহমানের। বেগম জিয়া বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছে এবং বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে বাসায় হুইলচেয়ারে চলাচল করে।

অপরদিকে তারেক রহমান আদালতের দণ্ড মাথায় নিয়ে লন্ডনে বসে অনলাইন প্রক্রিয়ার দলের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নেতৃত্ব দেন। বর্তমান রাজনীতির প্রক্ষাপটে তাদের কেউই জনগণের সামনে উপস্থিত হয়ে নেতৃত্ব দিতে অপরাগ।

এক্ষেত্রে সভা-সমাবেশে এভাবে দুটো চেয়ার খালি রেখে নেতাকর্মীদের মাঝে তাদের এ অপরাগতা প্রকাশকে কেন উপস্থাপন জরুরি। এতে কি নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙা হয়, নাকি মনোবল ভেঙে যায়?

এদেশের মানুষ সংঘর্ষ, রাজনৈতিক সহিসংতা ও অস্থিতিশীলতা চায় না। হরতাল-অবরোধের মত রাজনীতির এ অমূলক প্রপঞ্চগুলো প্রায় হারিয়ে গেছে। এ ধারা ফিরিয়ে এনে বিএনপি আসলে কোনো ফায়দা নিতে পারবে না। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এদেশের মানুষের যানমাল রক্ষায় সদা তৎপর। পুলিশ বাহিনীকে বিএনপির প্রতিপক্ষ ভাবা কোনোক্রমেই ঠিক হয়নি।

ভোলায় বিএনপির নেতাকর্মী পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে মারমুখী আচরণ করার ফলে ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের যে দুজন নেতা নিহত হয়েছে তার দায়ভার বিএনপিকেই নিতে হবে। পুলিশ বাহিনী আত্মরক্ষার্থে কিংবা জনগণের যানমাল ও আইন-শৃঙ্খলার রক্ষায় কাজ করবে।

যেখানে বিএনপি নেতাকর্মীর সংযত আচরণ করে শান্তিপূর্ণ উপায়ে গণতান্ত্রিকভাবে সভা-সমাবেশ করবে, সেখানে পুলিশ বাহিনীকে দেখে অসংযত ও মারমুখী আচরণ করে তার দায়ভার বিএনপিকেই নিতে হবে। বিএনপির নেতাকর্মীদের মারমুখী আচরণে হতাহতের ঘটনার দায় বিএনপিকেই নিতে হবে। কারণ পুলিশ বাহিনী এদেশের জনগণের বাহিনী; এ বাহিনীকে কোনোক্রমেই বিএনপির প্রতিপক্ষ ভাবা ঠিক হয়নি।

তত্ত্বাবধায়ক, জাতীয় সরকার কিংবা দলীয় সরকার, যে সরকারের অধীনে নির্বাচন হোক না কেন, নির্বাচন পরিচালনা করার সাংবিধানিক, আইনগত ও নীতিগত দায়িত্ব বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনকে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের ক্ষমতা এদেশের সর্বোচ্চ আইন আমাদের সংবিধান দিয়েছে। কিন্তু বিএনপি এদেশের সংবিধানের প্রতি ন্যূনতম শ্রদ্ধা দেখায়নি। তাছাড়া সাংবিধানিক বডিকে সুসংহতকরণ ও শক্তিশালীকরণে বিএনপির যথাযথ ভূমিকা রাখা জরুরি, সেখান থেকে বিএনপি অনেক দূরে সরে গেছে।

তাছাড়া নুরুল হুদা কমিশনের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে নতুন আউয়াল কমিশন কমিশন গঠিত হয়। সার্চ কমিটির মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির চূরান্ত ক্ষমতাবলে এ কমিশন গঠিত হয়েছে। আউয়াল কমিশন গঠিত হবার পর সব নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ ও সাংবাদিক মহলের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে। কিন্তু এ কমিশনের মতবিনিময় সভায় বিএনপি অংশগ্রহণ করেনি।

এটাও বিএনপির রাজনৈতিক শিষ্টাচারের লঙ্ঘন কিনা তা একটু তলিয়ে দেখা জরুরি। তাছাড়া নতুন আউয়াল কমিশনের অধীনে এখনো কোনো বিতর্কিত কোনো কর্মকাণ্ড পরিলক্ষিত হয়নি। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কথা বেমালুম ভুলে গিয়ে বিএনপি যদি অগণতান্ত্রিক পথে হাঁটে, সংবিধানকে তুচ্ছজ্ঞান করে তার দায়ভার কে নেবে? বিএনপির এভাবে চলা কি সাংবিধানিক দায়িত্বশীলতার মধ্যে পড়ে, কিংবা এটা কি বিএনপির দায়িত্বশীল আচরণ?

তরুণ প্রজন্মের মধ্যে থেকে নতুন নেতৃত্ব তৈরির প্রক্রিয়া প্রায় সব দলের মধ্যে রয়েছে। রাজনৈতিক দল, এর সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনগুলোর মধ্যে কাউন্সিল বা সম্মেলন করে নতুন নেতৃত্ব তৈরি করতে হয়। দলের সর্বোচ্চ ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও কাউন্সিলের মাধ্যমে তৈরি হয়। এক্ষেত্রে বিএনপি অনেক পিছিয়ে রয়েছে।
বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনগুলোর মধ্যে কাউন্সিল বা সম্মেলন করে নেতৃত্বে গতিশীলতা আনা সম্ভব হয়নি। লন্ডনে বসে তারেক রহমান একক ক্ষমতাবলে দলীয় কমিটিগুলো করে দিচ্ছে। নামসর্বস্ব এ কমিটিতে কোনো গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া মানা হয় না। বিএনপি দলের মধ্যে যদি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের চর্চা না করে তাহলে তারা কীভাবে গণতন্ত্রের কথা বলে? বিএনপির দলের অভ্যন্তরে চরম নেতৃত্ব সংকট রয়েছে।

তাছাড়া বিএনপির যেসব প্রবীণ নেতা মারা গেছেন; সেই শূন্যস্থান পূরণে বিএনপি যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। কাজেই বিএনপি দলকে সংগঠিত করতে পারেনি বিধায় তারা নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ করতে নারাজ। একবার জাতীয় সরকার, একবার তত্ত্বাবধায়ক সরকার বলে চিৎকার-চেচামেচি ছাড়া ভিন্ন কোনো উপায় খুঁজে পাচ্ছেন না। বিএনপি এর দলীয় ভিত্তি ও নৈতিক ভিত্তি দুটোই বিসর্জন দিয়েছে।

অন্যদিকে বিএনপি দীর্ঘদিন স্থানীয় নির্বাচন ও বিভিন্ন উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে এ ভুলের খেসারত দিতে হয়েছে পাঁচ বছর। এর পরের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে সিঙ্গেল ডিজিটের আসন পেয়ে বিরোধী দলের অবস্থান থেকে তাদের অবস্থান অনেক নিচে নেমে আসে।

ফলে দলের অধিকাংশ নেতা সংসদের বাইরে থেকে সংসদীয় রীতিনীতি ভুলতে বসেছে। তাছাড়া নির্বাচনের ব্যয়ভার যোগানের সক্ষমতাও অনেকেরই নেই বিধায় নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণে অনীহা দেখাচ্ছে। ক্ষমতায় যেতে পারবে না বিধায় তারা নির্বাচনে আগ্রহ হারাচ্ছে।

তাছাড়া বিএনপির অনেক নেতা স্থানীয় নির্বাচনে এবং সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় নির্দেশনা উপেক্ষা করে অংশগ্রহণ করে। নির্বাচনে অংশগ্রহণের কারণে দল তাদেরকে বহিষ্কার করে। এর ফলে দলের সঙ্গে এসব নেতা-নেত্রীর সম্পর্কে ফাটল ধরে সংকট আরো ঘণীভূত হয়। এতে নেতা-নেত্রীরা দলছাড়া হয়ে নিজের মত চলতে শুরু করে বা সরকারি দলের সঙ্গে আঁতাত করে কিংবা রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেয়। বিএনপি এ দৈন্যদশা থেকে বের হতে পারেনি। যার ফলে বিএনপি নির্বাচনবিমুখ আচরণ আরো তীব্র হচ্ছে।

বিএনপির দিমুখী আচরণ দেখা যাচ্ছে এর দলের অভ্যন্তরে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত নির্বাচনে জিতে সংসদে যাননি। কিন্তু বাকি যারা জিতেছেন তারা সংসদে গিয়ে জোরালো ভূমিকা পালন করছে। সংখ্যায় কম হলেও তারা সংসদ মাতিয়ে রাখতে পেরেছেন।

তারা সংসদে আছেন, সংসদে কথা বলছেন, অথচ সংসদকে অবৈধ সংসদ বলছেন, সরকারকে অবৈধ সরকার বলছেন। হয় তারা সংসদে পরিপূর্ণভাবে অংশগ্রহণ করে সংসদীয় ব্যবস্থা মেনে চলবেন; না হয় সংসদকে সম্পূর্ণ বর্জন করে সংসদের বাইরে সভা-সমাবেশ করে জনসমর্থন আদায় করবেন। কিন্তু দুটোর কোনোটাই না করে তারা ক’জন সংসদের সুবিধাও নিচ্ছেন, একজন নিচ্ছেন না। আবার খালি ময়দানেও হুঙ্কার দিচ্ছেন।

বিএনপির এ দ্বিমুখী নীতি তার সহজাত বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে মানানসই কিনা তা একটু তলিয়ে দেখা জরুরি।
একসময় বিএনপি বিভিন্ন দূতাবাসে গিয়ে সরকারের নামে নালিশ করতো। তখন তাদের রাজনীতি ছিল দূতাবাসকেন্দ্রিক, এখনো এ কর্মকাণ্ড অব্যাহত আছে। বিএনপি দূতাবাসে নালিশ করে তেমন ফায়দা হাসিল করতে পারেনি। তাই বিএনপি এ ধারা অব্যাহত রেখে রাজনীতির মাঠ চাঙা করার কৌশলও অবলম্বন করেছে। বিএনপিকে অবশ্যই দূতাবাসকেন্দ্রিক নালিশের রাজনীতি বাদ দিয়ে জনগণের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে অগ্রসর হতে হবে।

যদিও তারা অনেক দেরিতে হলেও তাদের নেতাকর্মী নিয়ে জনগণের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে রাজনীতির মাঠ চাঙার চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে তাদের অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে জনগণের রাজনীতি করতে গিয়ে জনগণের যানমালের কোনো ক্ষতি হয় এমন কোনো কাজ করা যাবে না।

বেগম জিয়া সরকারের আনুকূল্যে বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে পারছেন। দলে তাঁর নেতৃত্ব দেওয়ার শারীরিক শক্তি ও সামর্থ্য কোনোটাই নেই। তাছাড়া বিদেশে নিয়ে তাঁর চিকিৎসা করাতে হলে মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করতে হবে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ক্ষমাপ্রার্থনা মঞ্জুর করলে হয়তো বা তাঁকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানো যেতে পারে।

চিকিৎসা করানোর পর তিনি কতটুকু সুস্থ হবেন কিংবা আদৌ সুস্থ হবেন কিনা তা তাঁর চিকিৎসকরাই ভালো বলতে পারবেন। কিন্তু এমন একজন অসুস্থ রোগীকে নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে তা অনেকের কাছে চরম অমানবিক মনে হচ্ছে। বেগম জিয়া এ বয়সে পরিবার-পরিজনের কাছে থেকে সেবা-শুশ্রƒষা পাক এটাই হবে মানবিক কাজ।

সরকার এ ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এটা সরকারের মানবিকতা ও উদারতার বহিঃপ্রকাশ। বেগম জিয়াকে নিয়ে বিএনপির রাজনীতি না করাই হবে মানবিকতা, করলে সেটা হবে চরম অমানবিকতা।

পরিশেষে এটা বলতে চাই, বিএনপি তার অযৌক্তিক আচরণ পরিত্যাগ করে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক পথে হাঁটুক, আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করুক, শান্তিপূর্ণভাবে সভা-সমাবেশ করুক; নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে সুসংহত ও শক্তিশালী করুকÑ এটাই সবার প্রত্যাশা।

লেখক : কবি ও সাংবাদিক

সর্বশেষ - ক্যাম্পাস

আপনার জন্য নির্বাচিত

গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংকের মহাখালী শাখা নতুন ঠিকানায় স্থানান্তর

পঞ্চগড়ে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) পালিত 

শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির আত্মপরিচয় ফিরিয়ে এনেছেন

ইকো সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কাছে জেসিবি ৫৩০-৭০ টেলিহ্যান্ডলার হস্তান্তর করলো ইপিজিএল

ভারত থেকে আসা আক্রান্ত দুজনকে আলাদা রাখা হয়েছে: পরিচালক

কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের উদ্যোগে রাস্তার পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান

গো খাদ্য সংগ্রহে সরিষা ক্ষেতে কৃষাণীর ভীড়!

মধ্যরাতে শাবি’র শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর ভার্চুয়াল বৈঠক

জীববৈচিত্র্য রক্ষায় বছরে ৪ শত বিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দেয়া প্রয়োজন

তরুণরাই একদিন লাল সবুজের শতবর্ষ পালন করবে : খাদ্যমন্ত্রী

ব্রেকিং নিউজ :

বাঙলা প্রতিদিন

This will close in 1 seconds