শনিবার , ১৯ নভেম্বর ২০২২ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

রসিক নির্বাচন : আওয়ামী লীগের ৮ নেতা হাই কমান্ডের অপেক্ষায়

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন
নভেম্বর ১৯, ২০২২ ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

  • # বিএনপি সরে দাঁড়ালো, মাঠে জাতীয়পার্টি ও স্বতন্ত্র বেশে জামাত

এস.এম জাকির হুসাইন, রংপুর : বর্তমান সরকারের অধীনে বিএনপি কেনো নির্বাচনে অংশ নিবেন না বলে অটল থাকায় রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর প্রচার থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বিএনপির দুই নেতা। তবে মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কাওছার জামান এখনো মাঠে রয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে লড়বেন বলে জানিয়েছেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে নীরব প্রচার চালাচ্ছেন মহানগর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমির অধ্যাপক মাহাবুবার রহমান বেলাল।

জাতীয় পার্টি থেকে আগভাগেই প্রার্থী চূড়ান্ত হওয়ায় সরব প্রচারে রয়েছেন বর্তমান সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। তবে প্রার্থী চূড়ান্ত না হওয়ায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে স্নায়ুচাপ বেড়েছে। এ ছাড়া জাসদ (ইনু), বাসদ, ইসলামী আন্দোলন ও খেলাফত মজলিশসহ কয়েকটি দলের নেতারাও মেয়র পদের জন্য প্রচার চালাচ্ছেন। ফলে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনী পরিবেশ প্রত্যাশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ইতোমধ্যে জাপা প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক আমিরুজ্জামান পিয়াল মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১৪৩ জন প্রার্থীতার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন লাভের প্রতাশা নিয়ে কয়েক মাস আগে থেকে প্রচার চালিয়ে আসছিলেন দলটির রংপুর মহানগরের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান সামু, রংপুর শহর শাখার সাবেক সভাপতি ও বর্তমান মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কাওছার জামান বাবলা ও যুবদল নেতা নাজমুল আলম নাজু। তফসিল ঘোষণার পর প্রচার থেকে সরে দাড়ান শামসুজ্জামান সামু ও নাজমুল আলম। কাওছার জামান বাবলা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানাগেছে।

এদিকে, জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী ভোটযুদ্ধে থাকলে নির্বাচনকে ঘিরে তৈরি হতে পারে নতুন মেরুকরণ। প্রতিদ্বন্দ্বিতার লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে বেকায়দায় ফেলতে স্বতন্ত্র বেশে মাঠে নামা জামায়াতে ইসলামীর ভোটের সংখ্যা বাড়াতে পারে বিএনপি। যদিও জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী নিয়ে চিন্তিত নন সরকারি ও বিরোধী দল।

জামায়াতে ইসলামীর রংপুর মহানগরের সাবেক আমির অধ্যাপক মাহাবুবার রহমান বেলাল বলেন, ‘আমি জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও সিটি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করব।

বিশ্লেষকদের মতে, ২০১৭ সালে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ৩৭ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। এবার বিএনপি এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলে তাদের সব ভোট পড়বে জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামীর পক্ষে।

অন্যদিকে জাতীয় পার্টি প্রার্থী চূড়ান্ত করলেও তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলমান। এখনো লাঙল নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীসহ সমর্থকদের মাঝে টানাটানি আছেই। বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে মনোনয়ন দিয়ে রেখেছেন দলীয় চেয়ারম্যান জিএম কাদের। গত রবিবার রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি ও বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে পার্টির প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত মনোনয়ন প্রদান করা হয়।

তবে দলটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদের কাছ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন দাবি করে লাঙল প্রতীকের ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুন সাঁটিয়ে প্রচারে যদিও রয়েছেন একেএম আবদুর রউফ মানিক। তিনি রওশন এরশাদের দেশে ফেরার দিকে তাকিয়ে আছেন।

এখন পর্যন্ত জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী হিসেবে মাঠে সরব থাকা বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ‘ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। বিশেষ করে বর্ধিত এলাকার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন উল্লেখযোগ্য। আশা করছি অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হলে আবারও আমি নির্বাচিত হব।’

এদিকে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী কে হবেন, তা এখনো দলীয়ভাবে চূড়ান্ত হয়নি। এর মধ্যে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন রংপুর আওয়ামীলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের ৮ নেতা। এর মধ্যে রয়েছেন রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিউর রহমান সফি, সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল, রংপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনোয়ারুল ইসলাম, কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ইঞ্জিনিয়ার লতিফুর রহমান মিলন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আতাউর জামান বাবু ও রংপুর মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মজিদ। এ ছাড়া নগরীতে পোস্টার-ফেস্টুন না সাঁটালেও লোকমুখে আছে আরও দুজনের নাম। তারা দলের হাইকমান্ডের দিকে তাকিয়ে আছেন। তারা হলেন- কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা চৌধুরী খালেকুজ্জামান ও রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু।

তফসিল ঘোষনার পর প্রায় দেড়শ জনের মনোনয়ন সংগ্রহ : রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে ১৪৩ জনের প্রার্থীতার লক্ষ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ। মেয়র পদে ৩ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১০২ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩৮ জন রয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশন যুগ্ম সচিব আবদুল বাতেন।

রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, গত ৭ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার পর মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু হয়। গত দশ দিনে সর্বমোট ১৪৩ জন মনোনয়নপত্র বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে মেয়র পদে জাতীয় শ্রমিক লীগের রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ, সাধারণ কাউন্সিলর (পুরুষ) পদে ৪১ এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর (নারী) পদে ১৩ জন মনোনয়নপত্র কিনেছেন।

বর্তমান প্যানেল মেয়র ও ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহামুদুর রহমান টিটু, ২০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম, ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সেকেন্দার আলী, ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আমিনুর রহমান, ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজু, ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আফজাল হোসেন, ২৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী নুর ইসলাম প্রমুখ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মেয়র পদে এম এ মজিদ মনোনয়ন নেন। এর আগে বর্তমান মেয়র ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক আমিরুজ্জামান পিয়াল ।

পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ডের সঙ্গে বর্ধিত এলাকার ( সাবেক সদর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন থেকে) ও ১৮টি ওয়ার্ড যুক্ত করে ৩৩টি ওয়ার্ড নিয়ে ২০১২ সালের ২৮ জুন ২০৩ বর্গকিলোমটিার এলাকা নিয়ে রংপুর সিটি করপোরেশন গঠিত হয়। প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় সিটি কর্পোরেশন গঠিতের ছরের ২০ ডিসেম্বর। সে বার আওয়ামী লীগের প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝণ্টু নির্বাচিত হন। ২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর দ্বিতীয় নির্বাচনের সময় ভোটার ছিল ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪ জন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা মেয়র নির্বাচিত হন।

এবার তৃতীয় বারের মতো রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর। ১ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং ৮ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে পরের দিন ৯ ডিসেম্বর। ২৭ ডিসেম্বর ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত এক টানা ভোটগ্রহণ চলবে।

সর্বশেষ - ক্যাম্পাস

আপনার জন্য নির্বাচিত

শিক্ষা উপমন্ত্রীর পক্ষে পশ্চিম বাকলিয়ায় দেড়’শ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ

চার কেজি গাঁজাসহ একজনকে আটক করেছে বিমানবন্দর রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি পুলিশ

আরইউজের নতুন সভাপতি রফিকুল, সম্পাদক তানজিমুল

এপ্রিলে প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ও জুলাইয়ে ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ

বেগমগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের ৩ সদস্য গ্রেফতার

ভ্যাকসিন নিতে বিএনপির ভূমিকা গাধা জল ঘোলা করে খাওয়ার মতো : তথ্যমন্ত্রী

নতুন উদ্ভাবনী ফিচার নিয়ে স্যামসাং নিয়ে এলো অ্যান্ড্রয়েড ১১ এবং গ্যালাক্সি এ০৩ কোর

এলডিসি’র পক্ষ থেকে ডব্লিউটিও’তে দেয়া শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধার অনুমোদন চায় বাংলাদেশ

রিকশা চালক সেজে সাজাপ্রাপ্ত আসামি এক দম্পতিকে গ্রেফতার করলো পুলিশ

আমার স্বজনদের আঘাত করা হতো, বিচ্ছেদের পর মুখ খুললেন সীমা

ব্রেকিং নিউজ :

বাঙলা প্রতিদিন

This will close in 1 seconds