300X70
রবিবার , ৭ এপ্রিল ২০২৪ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

শবে কদরের নামাজের নিয়ম ও দোয়া

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
এপ্রিল ৭, ২০২৪ ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন, ধর্ম ডেস্ক :  কোরআন নাজিলের মাস রমজানের গুরুত্ব ও মাহাত্ম্য কয়েকগুণ বৃদ্ধি পায় শবে কদরের কারণে। এই রাতেই আল্লাহ তায়ালা জিবরাঈল আলাইহিস সালামের মাধ্যমে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর কোরআন নাজিল করেছেন।

পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, নিশ্চয়ই আমি কোরআন নাজিল করেছি মহিমান্বিত রজনীতে। আর আপনি কি জানেন মহিমান্বিত রজনী কী? মহিমান্বিত রজনী হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ। এ রজনীতে প্রত্যেক কাজের জন্য ফেরেশতাগণ এবং রূহ তাদের প্রতিপালকের আদেশত্রুমে অবতীর্ণ হয়। এবং ভোর উদিত হওয়ার আগ পর্যন্ত কেবল শান্তি আর শান্তি বিরাজ করে।’ (আল-কদর, আয়াত : ১-৫)

শবে কদর কী?

শবে কদর ফার্সি শব্দ। শব শব্দের অর্থও রাত্রি। কদর শব্দের অর্থ সম্মান, মর্যাদা, সমাদর, খাতির। আরবিতে এই রাতকে লাইলাতুল কদর বলা হয়। আরবি ‘লাইলাতুন’ অর্থ রাত্রি।

শব ফার্সি শব্দ, এর অর্থও রাত্রি। কদর শব্দের অর্থ সম্মান, মর্যাদা, সমাদর, খাতির। আরেক অর্থ ভাগ্য, পরিমাণ ও তকদীর নির্ধারণ। রমজান মাসের শেষ দশদিনের যে কোনো বেজোড় রাত্রে, ‘শবেকদর’ ঘটে।

আল্লাহ তায়ালাও পবিত্র কোরআনে বলেছে, আপনি কি জানেন মহিমান্বিত রজনী কী? মহিমান্বিত রজনী হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ। ( সূরা কদর, আয়াত, ২-৩)

শবে কদরের ফজিলত

শবে কদরের ফজিলতের বিষয়টি কোরআন ও হাদিসের মাধ্যমে স্পষ্টভাবে প্রমাণিত। এই রাতে ইবাদতের সৌভাগ্য লাভ করা হাজার মাসের ইবাদতের থেকে উত্তম।

এক হাদিসে হজরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি ঈমান ও বিশ্বাসের সাথে এবং সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখে, শবে কদরের রাত্রে দাঁড়ায়, তার আগেকার সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়। (বুখারি)।

আয়েশা রা. বলেন, নবীজি বলেছেন, তোমরা রমজানের শেষ দশকের বিজোড় রাতে লাইলাতুল কদরের সন্ধান কর। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ২০১৭, সহিহ মুসলিম, হাদিস : ১১৬৯)

শবে কদর নফল নামাজ, দোয়া, ইস্তিগফার, জিকিরের মাধ্যমে কাটানো উচিত। এ রাতে বেশি বেশি নফল নামাজ পড়া উত্তম। তবে

শবে কদরে নফল নামাজ পড়ার আলাদা কোনো নিয়ম বা নিয়ত নেই। অন্যান্য নফল নামাজ যেভাবে পড়া হয়, এ দিন রাতেও যেভাবে স্বাভাবিক নিয়মে নফল নামাজ পড়তে হবে। আলাদা করে কোনো নিয়ত করতে হবে না। এবং কোনো রাকাতে নির্দিষ্ট করে কোনো সূরা পড়া বাধ্যতামূলক ভাবা যাবে না।

কেউ এ রাতে নফল নামাজ পড়ার আলাদা কোনো নিয়ম বা নিয়ত সাব্যস্ত করলে তা বিদয়াত বলে গণ্য হবে। কারণ, শবে কদরে নামাজ পড়ার কোনো নিয়ম বর্ণনা করেননি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।

আর আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াাসল্লাম বর্ণনা করেননি, সাহাবিরা পালন করেননি- এমন কোনো বিষয়ে ইবাদত বা নির্দিষ্ট করে আমল তৈরি করলে তা বিদয়াতের অন্তর্ভুক্ত। বিদয়াত আবিষ্কারকদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন আল্লাহর রাসূল।

বর্ণিত হয়েছে,  ‘নিশ্চয়ই সর্বোত্তম বাণী আল্লাহর কিতাব। আর সর্বোত্তম আদর্শ মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াাসল্লামের আদর্শ। সবচেয়ে নিকৃষ্ট বিষয় হলো, (দীনের মধ্যে) নব-উদ্ভাবিত বিষয়।

(দীনের মধ্যে) নব-উদ্ভাবিত সবকিছুই বিদআত। প্রত্যেক বিদআত ভ্রষ্টতা, আর প্রত্যেক ভ্রষ্টতার পরিণাম জাহান্নাম।’ (মুসলিম, হাদিস, ১৫৩৫; নাসায়ি, হাদিস, ১৫৬০)

শবে কদরের নামাজের দোয়া :

শবে কদরে একজন মুসলিম যেসব ইবাদত করবেন তার পুরোটাই নফল। এ রাতে কোরআন তিলাওয়াত, জিকির, নামাজ সব নফল। কোনোটাই ফরজ, ওয়াজিব বা অন্ততপক্ষে সুন্নতে মুয়াক্কাদাও নয়।

এজন্য কেউ এ রাতে নফল নামাজ পড়লে তা অন্যান্য যেকোনো সময়ের নফল নামাজের মতো পড়বে, নফল নামাজে সানা, সূরা ফাতিহা, সূরা মিলানো, বৈঠক, তাশাহুদ, দরুদ, দোয়া মাসুরা, সব স্বাভাবিক নিয়মে পালন করতে হবে। দুই রাকাত করে নফল নামাজ পড়তে পারেন। চাইলে একসঙ্গে চার রাকাত করে নফল নামাজও পড়া যেতে পারে।

নামাজ শেষে চাইলে আল্লাহ তায়ালার কাছে যেকোনো দোয়া করতে পারেন। মনের ইচ্ছা জানিয়ে যা ইচ্ছা তাই চাইতে পারেন। তবে এ রাতের নফল নামাজের জন্য নির্দিষ্ট করে আলাদা কোনো দোয়া নেই। তাই শবে বরাতে কারো জন্য নির্দিষ্ট কোনো দোয়া করা উচিত হবে।

শবে কদরে যে দোয়া পড়বেন : 

রমজানের শেষ দশকের যেকোনো রাত শবে কদর হতে পারে। প্রত্যেকটি বেজোড় রাতে ইবাদত করা উচিত। এবং এ রাতে হাদিসে বর্ণিত একটি দোয়াটি করা উচিত।

উম্মুল মুমিনিন আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন- হে আল্লাহর রাসুল, আমি যদি জানতে পারি যে, কোন রাতটি লাইলাতুল কদর— তাহলে তখন কোন দোয়া পড়বো? তখন তিনি বললেন, তুমি বলো—

اللَّهمَّ إنَّك عفُوٌّ كريمٌ تُحِبُّ العفْوَ، فاعْفُ عنِّي

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন কারিম; তুহিব্বুল আফওয়া, ফা’ফু আন্নি।

অর্থ : হে আল্লাহ, আপনি মহানুভব ক্ষমাশীল। আপনি ক্ষমা করতে পছন্দ করেন। অতএব আপনি আমাকে ক্ষমা করুন।’ (তিরমিজি, হাদিস : ৩৫১৩)

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

এবার ঈদে ৯৫ লাখ পশু বিক্রি

ইউনূসের বিচার পর্যবেক্ষণে লিগ্যাল এক্সপার্টদের নিয়ে আসুন: খুরশীদ আলম

হাইকোর্টের বিচারপতি ইকবাল কবিরকে গোবিন্দগঞ্জে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ

সাবেক ব্যাংককার খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের মৃত্যুতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর শোক

সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে কলেজশিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

অতিরিক্ত বিল দেখিয়ে টাকা ভাগাভাগির কল রেকর্ড ফাঁস

সুস্থভাবে বেচে থাকতে প্লাস্টিক পলিথিন পণ্য বর্জন করতে হবে : পরিবেশমন্ত্রী

এরশাদের উপহার জন্মাষ্টমীতে সরকারি ছুটি

বঙ্গবন্ধুর প্রতি সারা পৃথিবীর মানুষের শ্রদ্ধাবোধ প্রতিজন বাঙালির জন্য গর্ব করার বিষয় : টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ইসলামী ব্যাংকের ইন্টার্নশিপ প্রোগ্রাম সম্পন্ন

ব্রেকিং নিউজ :